প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক পদে বিশাল নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২০

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরাধীন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে রাজস্বখাতভুক্ত “সহকারী শিক্ষক” এর শূন্যপদে এবং জাতীয়করণকৃত সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পিইডিপি-৪ এর আওতায় প্রাক-প্রাথমিক শ্রেণির জন্য রাজস্বখাতে সৃষ্ট “সহকারী শিক্ষক” পদে জাতীয় বেতনস্কেল, ২০১৫-এর ১৩তম গ্রেডে অস্থায়ীভাবে নিয়ােগের জন্য বাংলাদেশের প্রকৃত নাগরিকদের নিকট থেকে (পার্বত্য তিন জেলা রাঙ্গামাটি, খাগড়াছড়ি, বান্দরবান ব্যতীত) দরখাস্ত আহবান করা যাচ্ছে।

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষকের নিয়োগ দেয়ার জন্য বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর। ২৫ অক্টোবর সকাল সাড়ে ১০টা থেকে আবেদন প্রক্রিয়াও শুরু হয়েছে। ২৪ নভেম্বর রাত ১১টা ৫৯ মিনিট পর্যন্ত ১১০ টাকা ফি জমা দিয়ে এই আবেদন করা যাবে। এ আবেদন প্রক্রিয়ার পর লিখিত ও ভাইভা পরীক্ষার মাধ্যমে মোট ৩২ হাজার ৫৭৭ জন সহকারী শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হবে বলে জানা গেছে।

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক নিয়োগের পদের নাম, বেতনস্কেল, শিক্ষাগত যোগ্যতা 

• পদের নামঃ সহকারী শিক্ষক

শিক্ষার সব খবর সবার আগে জানতে EducationsinBD এর চ্যানেলের সাথেই থাকুন। আমদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন YouTube Channel নতুন বিকাশ অ্যাপ থেকে নিজের একাউন্ট খুলুন মিনিটেই, শুধুমাত্র জাতীয় পরিচয়পত্র দিয়ে। কোথাও যেতে হবে না! আর অ্যাপ থেকে একাউন্ট খুলে প্রথম লগ ইনে পাবেন ১০০ টাকা ইনস্ট্যান্ট বোনাস!সাথে আছে আরো অ্যাপ অফার: - প্রথম বার ২৫ টাকা রিচার্জে ৫০ টাকা ইনস্ট্যান্ট বোনাস .সর্বমোট ১৫০ টাকা বোনাস পাবেন একজন বিকাশ গ্রাহক। এছাড়া যারা একাউন্ট খুলেছেন তারাও বিকাশ এপ ডাউনলোড করে প্রথম প্রথম লগ ইনে পাবেন ১০০ টাকা ইনস্ট্যান্ট বোনাস! Bkash App Download Link

• বেতনক্রমঃ বেতনস্কেল টাকা ১১০০০- ২৬৫৯০ (গ্রেড-১৩) (জাতীয় বেতনস্কেল , ২০১৫ অনুযায়ী)

• বয়সসীমাঃ ২০ অক্টোবর ২০২০ তারিখে বয়স সর্বনিম্ন ২১ বৎসর এবং ২৫ মার্চ ২০২০ তারিখে সর্বোচ্চ ৩০ বৎসর (মুক্তিযােদ্ধার সন্তান ও শারীরিক প্রতিবন্ধী আবেদনকারীর ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ বয়সসীমা ২৫ মার্চ ২০২০ তারিখে ৩২ বৎসর)।

• শিক্ষাগত যােগ্যতাঃ কোন স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় হতে দ্বিতীয় শ্রেণি বা সমমানের সিজিপিএসহ স্নাতক বা স্নাতক (সমমান) বা সমমানের ডিগ্রী।

প্রথমিক সহকারী শিক্ষক নিয়োগে আবেদনের সময়সীমা

• অনলাইনে আবেদন শুরুর তারিখ: অনলাইনে আবেদন গ্রহণ শুরু হবে ২৫ অক্টোবর ২০২০ (সকাল ১০:৩০ হতে)
• আবেদন শেষের তারিখ: শেষ হবে ২৪ নভেম্বর ২০২০ (রাত ১১:৫৯-এ)।

আরো পড়ুন- প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়োগের আবেদন করবেন যেভাবে

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ কার্যক্রমে অনলাইনে আবেদন করবেন যেভাবে

• http://dpe.teletalk.com.bd ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে অনলাইনে Application Form পূরণের পাওয়া যাবে।
উক্ত নির্দেশনা অনুসরণপুর্বক অনলাইনে application Form পূরণ করে Submit করা হলে ওয়েবসাইট হতে প্রার্থীর user ID সহ Unpaid স্ট্যাটাস সম্পন্ন Draft Applicant”s Copy তৈরি হবে যা প্রিন্ট করে আবেদনে প্রদত্ত তথ্য যাচাই করতে হবে।

• আবেদন ফি জমাদানের পূর্বে Draft Applicant’s Copy একাধিকরার পড়ে প্রার্থী তার প্রদত্ত তথ্যের যথার্থতা সম্পর্কে নিশ্চিত হবেন। কোন ভুল পরিলক্ষিত হলে তার বিপরীতে আবেদন ফি জমা দেয়া যাবে না এবং এই বিজ্ঞপ্তির ৩ নং অনুচ্ছেদ  অনুসরণ করে নতুন করে Application Form সঠিক তথ্য দিয়ে পুরণপূর্বক নতুন User ID সংবলিত Unpaid স্ট্যাটাস সম্পন্ন draft Applicant’s Copy প্রিন্ট নিয়ে পুনরায় প্রদত্ত তথ্য যাচাই করতে হবে।

• নির্ভুলভাবে পুরণকৃত Application Form-এর বিপরীতে প্রদত্ত User ID ব্যবহার করে পযরবর্তী ৭২ ঘন্টার মধ্যে Draft Applicant’s Copy-তে প্রদত্ত নির্দেশনা অনুসরণপুর্বক যেকোন টেলিটক প্রি-প্রেইড মােবাইল হতে SMS-এর মাধ্যমে অফেরতযােগ্য ১০০.০০ (একশত) টাকা আবেদন ফি এবং টেলিটকের সার্ভিস চার্জ ১০.০০ (দশ) টাকাসহ একত্রে মােট ১১০ (একশত দশ) টাকা পরিশােধ করতে হবে।

আবেদন ফি পরিশােধের পরে আবেদনে প্রদত্ত মােবাইল নম্বরে SMS-এর মাধ্যমে আবেদনকারীকে User ID-সহ একটি Password দেওয়া হবে। এরপর  http://dpe.teletalk.com.bd ওয়েবসাইটে Download Applicant’s Copy” বাটনে ক্লিক করে মোবাইলে প্রাপ্ত User Id ও Password Submit করে Paid Status সম্পন্ন করে Final Applicant’s Copy পাওয়া যাবে যা প্রিন্ট করে নিয়ােগ প্রক্রিয়ার শেষাবধি আবশ্যিকভাবে সংরক্ষণ করতে হবে। কেবলমাত্র আবেদন ফি পরিশােধের পরেই, আবেদনটি চূড়ান্তভাবে গৃহীত হয়েছে বলে গণ্য হবে এবং আবেদনে আর কোন তথ্য সংশােধন, সংযােজন, পরিমার্জন বা একই প্রার্থীর নতুনভাবে Application Form পূরণের সুযােগ থাকবে না।

• পরবর্তীতে লিখিত পরীক্ষার ব্যবস্থাদি চুড়ান্ত করার পর প্রতােক যােগ্য আবেদনকারীকে SMS-এর মাধ্যমে প্রবেশপত্র ডাউনলােডের লিংক প্রদান করা হবে যা ব্যবহার করে আবেদনকারী পরীক্ষার প্রবেশপত্র ডাউনলােড করতে পারবেন। User ID এবং Password পুনরুদ্ধারের প্রয়ােজন হলে উক্ত লিংকে প্রার্থীর ব্যক্তিগত তথ্য দিয়ে পুনরুদ্বার করা যাবে।

প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক পদে বিশাল নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২০

প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক পদে আবেদন সংক্রান্ত নির্দেশনা 

• আবেদনকারী যে উপজেলা/থানার স্থায়ী বাসিন্দা তার প্রার্থিতা উক্ত উপজেলা/থানার অনুকূলে নির্ধারিত থাকবে এবং তার নিয়ােগ সংক্রান্ত যাবতীয় কার্যক্রম তদনুযায়ী নিয়ন্ত্রিত হবে। সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক নিয়ােগ বিধিমালা, ২০১৯-এ বর্ণিত প্রক্রিয়া অনুযায়ী নির্বাচিত প্রার্থীকে নিজ উপজেলা/থানায় নিয়ােগ দেয়া হবে।

• সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক নিয়ােগ বিধিমালা, ২০১৯ অনুযায়ী মেধাক্রমানুসারে নির্বাচিত প্রার্থীদের দ্বারা প্রথমে (উপজেলা/থানাভিত্তিক) সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে রাজস্বখাতভুক্ত ‘সহকারী শিক্ষক’ এর শুন্য পদসমূহ পূরণ করা হবে। মেধা তালিকার অবশিষ্ট প্রার্থী দ্বারা জাতীয়করণকৃত সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রাক-প্রাথমিক শ্রেণির জন্য রাজসখাতে সৃষ্ট “সহকারী শিক্ষক’ এর পদসমূহ পূরণ করা হবে।

•\বিবাহিত মহিলা প্রার্থীগণ আবেদনে তাদের স্বামী অথবা পিতার স্থায়ী ঠিকানায় আবেদন করতে পারবেন। তবে এ দুটি স্থায়ী ঠিকানার মধ্যে তিনি যেটি আবেদনে উল্লেখ করবেন তার প্রার্থিতা সেই উপজেলা থানার কোটায় বিবেচিত হবে।

• ২০ অক্টোবর ২০২০ তারিখে বযস সর্বনিম্ন ২১ বৎসর এবং ২৫ মার্চ ২০২০ তারখে সর্বোচ্চ ৩০ বংসর হতে হবে। তবে শুধুমাত্র মুক্তিযােদ্ধার সন্তান ও শারীরিক প্রতিবন্ধী প্রার্থী ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ বয়সীমা ৩২ বৎসর হবে। বয়স নিরপণের ক্ষেত্রে এফিডেডিট/অসত্য/ক্রটিপূর্ণ/অসম্পূর্ণ আবেদনপত্র কোন কারণ দর্শানাে ব্যতিরেকে বাতিল বলে গণ্য হবে।

• প্রার্থী কর্তৃক দাখিলকৃত প্রদত্ত কোন তথ্য বা কাগজপত্র নিয়ােগ কার্যক্রম চলাকালে যে কোনাে পর্যায়ে বা নিয়োগপ্রান্তির পরেও অসত্য/ভুয়া প্রমাণিত হলে তার দরখান্ত/নির্বাচন/নিয়ােগ বাতিল করা হবে এবং মিথা তথ্য সরবরাহ করার জন্য তার বিরুদ্ধে আইনগত/প্রশাসনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তাছাড়া আবেদনে নিজ জেলা, থানা/উপজেলা ভুল করলে তার প্রার্থিতা বাতিল বলে গণ্য হবে।

• আবেদনপত্রে পােষ্য কোটা উল্লেখ না করলে মৌখিক পরীক্ষার সময় পােষ্য কোটার স্বপক্ষে সনদ দাখিল করলেও তাকে পােষ্য কোটায় অন্তর্ভক্ত করা হবে না। আবেদনাপত্রে পােষ্য কোটা দাবি করা সত্ত্বেও পোষ্য কোটার স্বপক্ষে প্রয়ােজনীয় প্রমাণানি দাখিল করতে ব্যার্থ হলে তার প্রার্থীতা বাতিল বলে গণ্য হবে।

• আবেদনপত্রে পুরুষ প্রার্থী মহিলা কিংবা মহিলা প্রার্থী পুরুষ উল্লেখ করলে তার প্রার্থিতা বাতিল বলে গণ্য হবে।

• লিখিত পরীক্ষার ফলাফলের ভিত্তিতে মৌখিক পরীক্ষার জন্য নির্বাচিত/মনােনীত প্রার্থীকে নিম্নবর্ণিত কাগজপত্র দাখিল করতে হবে।

• অনলাইন-এ দাখিলকৃত আবেদনের ফটোকপি এবং পাসপাের্ট সাইজের ২ (দুই) কপি ছবি।

• শিক্ষাগত যােগ্যতা সম্পর্কিত সকল প্রকার মূল/সাময়িক সনদপত্র

• ইউনিয়নে পরিষদের চেয়ারম্যান/পৌরসভার মেয়র/সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর কর্তৃক প্রদত্ত নাগরিক সনদপত্র:

• জাতীয় পরিচায়পত্র/জন্ম নিবন্ধনের কপি

• পােষ্য প্রার্থীদের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট উপজেলা/থানা শিক্ষা অফিসার কর্তৃক (২৫ অক্টোবর ২০২০ তারিখের পূর্বে স্বাক্ষরিত নয়) প্রদত্ত পোষ্য সনদপত্র:

• সর্বোচ্চ বয়সসীমা ৩২ বৎসর প্রমাণের ক্ষেত্রে (I) মুক্তিযােদ্ধার সন্তান প্রার্থীদের জন্য সরকারের সর্বশেষ সিদ্ধান্ত অনুসারে মুক্তিযােদ্ধার প্রয়ােজনীয় সনদ ও কাগজপত্র, এবং (II) শারীরিক প্রতিবন্ধী প্রার্থীদের অনুকুলে উপযুক্ত কর্তৃপক্ষ কর্তৃক প্রদত্ত সনদপত্র।

• লিখিত পরীক্ষার প্রবেশপত্রের সত্যায়িত ফটোকপি প্রার্থীর সনদপত্র ও ছবি সত্যায়নকারী কর্মকর্তার (৯ম বা তদুর্ধ গ্রেডের গেজেটেড কর্মকর্তা) স্বাক্ষরের নীচে নামসহ সীল থাকত হবে।

• লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জনা কোনাে প্রকার টিএ/ডিএ প্রদান করা হবে না।

Online-এ আবেদন দাখিলের বিষয়ে সহযােগিতার প্রয়ােজন হলে [email protected] ই-মেইল ঠিকানায় অথবা যেকোন টেলিটক নম্বর হতে টেলিটকের কাস্টমার কেয়ার 121 নম্বরে যােগাযােগ করা যাবে। এছাড়া http//dpe.teletalk.com.bd ওয়েবসাইটের ‘Help’ ট্যাবে টেলিটকের নিকটস্থ কাস্টমার কোয়ার সেন্টারের ঠিকানা পাওয়া যাবে।

Educations in BD ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন YouTube Channel

Leave a Reply