জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের কলেজসমূহের ছুটি বাড়ল ৩১ আগষ্ট পর্যন্ত

করোনার ভাইরাস মহামারির কারণে দেশের সকল স্কুল-কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় ও কোচিং সেন্টারের ছুটি আগামী ৩১ আগষ্ট পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হয়েছে। যার ফলে ৩১ আগষ্ট পর্যন্ত জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের কলেজসমূহ বন্ধ থাকবে। করোনা ভাইরাস সংক্রমন থেকে শিক্ষার্থীদের সুরক্ষিত রাখতে ছুটি বাড়ানো হয়েছে।

আরো পড়ুন- শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি বাড়ল ৩১ আগষ্ট পর্যন্ত

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের চলমান ছুটি আগামী ৩১ আগষ্ট পর্যন্ত বাড়ানোর কথা (২৯ জুলাই) শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়। যার ফলে আরেক দফায় বাড়ল জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের কলেজসমূহের ছুটি। সর্বশেষ ঘোষণা অনুযায়ী ৩১ জুলাই পর্যন্ত ছুটি ছিল।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, সারাদেশে করোনা পরিস্থিতির আরও অবনতি এবং কঠোর লকডাউন কার্যকর থাকায় শিক্ষার্থী, শিক্ষক, কর্মচারী ও অভিভাবকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা এবং সার্বিক নিরাপত্তা বিবেচনায় কোভিড-১৯ সংক্রান্ত জাতীয় কমিটির পরামর্শে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

বিকাশ এপ ডাউনলোড করে লগ ইনে পাবেন ১০০ টাকা ইনস্ট্যান্ট বোনাস, সাথে ৫০ টাকা বোনাস একদম ফ্রী - Bkash App Download Link শিক্ষার সব খবর সবার আগে জানতে EducationsinBD এর চ্যানেলের সাথেই থাকুন। আমদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন YouTube Channel

এদিকে শিক্ষামন্ত্রী ডা দীপু মনি বলেছেন, শিক্ষার্থীদের করোনা থেকে সুরক্ষায় ভ্যাকসিন দেওয়ার ব্যবস্থা নিয়েছে বাংলাদেশ সরকার। ভ্যাকসিন দেওয়া শেষ হলে অল্প সময়ের মধ্যে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হবে। দীপু মনি বলেন, এখন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকলেও অনলাইনে পাঠদান চলছে, ভবিষ্যতে অনলাইন শিক্ষা পদ্ধতিকে আরও উন্নত করতে কাজ চলছে।

শিক্ষামন্ত্রী আরো বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের মাত্র ১২ দিনের মাথায় টেলিভিশনে ক্লাস শুরু করা হয়েছে। অনলাইন ক্লাস অস্বীকার করার কোনো সুযোগ নেই। শ্রেণিকক্ষে পাঠদানের পাশাপাশি অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রমেও গুরুত্ব দিতে হবে। যেটি আমাদের শুরু করতে আরও কয়েক বছর লেগে যেত, করোনার কারণে তা আমরা এখনই শুরু করে ফেলেছি।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে বলা হয়েছে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধের এই সময়ে শিক্ষার্থীগণ নিজ নিজ বাসস্থানে অবস্থান করবেন এবং টেলিভিশন ও অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রমের সাথে সংযুক্ত থাকবেন।  শিক্ষার্থীদের বাসস্থানে অবস্থানের বিষয়টি স্থানীয় প্রশাসন নিবিড়ভাবে পরিবীক্ষণ করবে। সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধান ও বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকরা তাদের নিজ নিজ শিক্ষার্থীরা যাতে বাসস্থানে অবস্থান করে এবং নিজ নিজ পাঠ্যবই অধ্যয়ন করে, সে বিষয়টি সংশ্লিষ্ট অভিভাবকদের মাধ্যমে নিশ্চিত করবেন।

উল্লেখ্য করোনাভাইরাসের কারণে গত ১৭ মার্চ থেকে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি চলছে। ২০২০ সালের প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষা এবং জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) ও জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) পরীক্ষা বাতিল করা হয়েছে। একই কারণে ২০২০ সালের উচ্চমাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) পরীক্ষাও নেওয়া সম্ভব হয়নি। ২০২১ সালের এসএসসি এবং এইচএসসি পরীক্ষাও করোনার কারণে পিছিয়ে গেছে৷ এছাড়াও স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ের হাজার হাজার পরীক্ষা করোনাভাইরাসের কারণে স্থগিত রাখা হয়েছে।

Educations in BD ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন YouTube Channel

Leave a Reply