জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের কোন কলেজে কত পয়েন্ট দরকার, অনার্স ভর্তির যোগ্যতা

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল কলেজে অনার্স ভর্তির যোগ্যতা 2023। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন কলেজগুলোতে স্নাতক (সম্মান) অনার্স প্রথম বর্ষে ভর্তির ন্যূনতম যোগ্যতাজাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের কোন কলেজে কত পয়েন্ট দরকার ১ম বর্ষের ভর্তির ক্ষেত্রে তা নিম্নে আলোচনা করা হল।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের কলেজগুলোতে স্নাতক (সম্মান) অনার্স ১ম বর্ষে ভর্তি নিয়ে আজ এডুকেশনস ইন বিডি ওয়েবসাইটে আলোচনা করা হবে৷ ১৯৯২ সালে প্রতিষ্ঠিত বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম বিদ্যাপীঠ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়৷ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় অনার্স ভর্তি সম্পন্ন করে এসএসসি এবং এইচএসসির জিপিএর উপর ভিত্তি করে।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের কোন কলেজে কত পয়েন্ট দরকার, অনার্স ভর্তির যোগ্যতা

আরো পড়ুন – জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের কলেজ র‍্যাংকিং ও মডেল কলেজের তালিকা 2023

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল কলেজে অনার্স ভর্তির যোগ্যতা ২০২২-২০২৩ সেশন

সারাদেশে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের আওতায় সরকারি ও বেসরকারি কলেজের সংখ্যা ২ হাজার+ টি। যার মধ্যে ৮০০+ টি কলেজে স্নাতক (সম্মান) পড়ানো হয়। এসব কলেজের ভিতর রয়েছে সরকারি ও বেসরকারি কলেজ। চাহিদার দিক থেকে সরকারি কলেজের প্রাধান্য বেশি। কিন্তু জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল কলেজে পড়ার মান একই।

এসএসসি ও এইচএসসি মিলিয়ে যাদের জিপিএ বেশি থাকে তারা জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সরকারি কলেজে মনমত সাবজেক্ট নিয়ে অনার্স করতে পারবে। এসএসসি ৪০% এইচএসসি ৬০% নম্বর নিয়ে মেধাস্কোর দেয়া হবে। যাদের পয়েন্ট একটু কম তারা বেসরকারি কলেজে ভালো সাবজেক্ট নিয়ে পড়তে পারে। সেক্ষেত্রে অনার্স ভর্তি-ইচ্ছুক শিক্ষার্থীদের বুঝে শুনে কলেজ চয়েস দিতে হবে। না বুঝে কম পয়েন্ট নিয়ে ভালো কলেজ চয়েস দিলে তারা ভালো সাবজেক্ট এ অনার্স ভর্তি থেকে বঞ্চিত হতে পারে।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন কলেজগুলোতে স্নাতক (সম্মান) অনার্স ১ম বর্ষে মানবিক শাখায় ভর্তির জন্য এসএসসি, এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় ন্যূনতম জিপিএ ২ দশমিক ৫০ শতাংশ করে থাকতে হবে। আর বিজ্ঞান ও ব্যবসায় শিক্ষা শাখা থেকে এসএসসিতে জিপিএ-৩.০০ এবং এইচএসসিতে জিপিএ-২.৫০ লাগবে।

আরো পড়ুন- জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক (সম্মান) অনার্সে নির্বাচিত বিষয় সমূহে ভর্তির যােগ্যতা

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের কোন কলেজে ভর্তি হতে কত পয়েন্ট দরকার

যাদের এসএসসি ও এইচএসসি মিলে মোট পয়েন্ট (৫-৬) এর ভিতর কিংবা যাদের পয়েন্ট কম কিন্তু অনার্সে ভর্তি হতে ইচ্ছুক তাদের জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত বেসরকারি কলেজে ভর্তির আবেদন করতে হবে। কারণ এই পয়েন্ট নিয়ে সরকারি কলেজে চান্স পাওয়া অনেক কঠিন। তবুও গ্রাম পর্যায়ের সরকারি কলেজে আবেদন করা যেতে পারে। তবে যাদের পয়েন্ট একেবারেই কম তাদের সরকারি কলেজে আবেদন না করাই ভালো, করলে পরবর্তীতে পস্তাতে হবে।

এসএসসি ও এইচএসসি মিলে যাদের পয়েন্ট (৬-৮) এর ভিতর কিংবা যাদের পয়েন্ট মোটামুটি ভালো তারা উপজেলা পর্যায়ের সরকারি কলেজ গুলোতে আবেদন করলে চান্স পাওয়ার সম্ভাবনা থাকবে। তাদের পয়েন্ট অনুযায়ী কলেজ নির্বাচন করে সঠিকভাবে বিষয় চয়েস দিতে হবে। তবে অনেক সময় জেলা পর্যায়ের সরকারি কলেজে এই পয়েন্ট নিয়ে চান্স পাওয়ারও সম্ভাবনা থাকে। এক্ষেত্রে দেখেশুনে কলেজ নির্বাচন এবং বিষয় চয়েস দেওয়ার বিষয়টি মাথায় রাখতে হবে।

যাদের এসএসসি ও এইচএসসি মিলে মোট পয়েন্ট (৮-১০) এর মধ্যে কিংবা পয়েন্ট খুব ভালো তারা জেলা এবং বিভাগীয় পর্যায়ের সরকারি কলেজগুলোতে আবেদন করতে পারেন। তবে বিজ্ঞান ও ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগের শিক্ষার্থীদের যাদের পয়েন্ট বেশি ভালো তাদের জেলা পর্যায়ের ভালো কলেজে চান্স পাওয়ার সম্ভাবনা থাকবে। তবে বিজ্ঞান বিভাগের ক্ষেত্রে ৯.৫০ এর নীচে থাকলে ভালো কলেজে আবেদন করা উচিত নয়। কারণ এবার জিপিএ-৫ এর সংখ্যা অনেক বেশি। বিজ্ঞানের শিক্ষার্থীদের মোট পয়েন্ট ১০ এর কম থাকলে ভালো কলেজে আবেদন করলেও মনমত বিষয় নাও পেতে পারেন।

জেলা ভিত্তিক কলেজ গুলোতে প্রতিযোগিতা অনেক বেশি তাই অনেক ভালো রেজাল্টের দরকার হয়। কিন্তু উপজেলা ভিত্তিক সরকারি কলেজ গুলোতে প্রতিযোগিতা তুলনামূলক একটু কম, তাই যাদের পয়েন্ট একটু কম তারা অবশ্যই উপজেলা ভিত্তিক সরকারি কলেজ গুলোতে চয়েজ দিবেন। তাহলে সম্ভাবনা থাকে ভালো সাবজেক্ট এ ভর্তি হওয়ার। যাদের পয়েন্ট বেশি কম তারা ভুলেও সরকারি কলেজে আবেদন করবেন না। আপনাদের সরকারি কলেজে চান্স পাওয়ার সম্ভাবনা কম।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের জেলা ভিত্তিক বা উপজেলা ভিত্তিক সকল সরকারী কলেজ এর মানে একই যদি কম পয়েন্ট নিয়ে জেলা ভিত্তিক সরকারি কলেজে চান্স না পান তখন রিলিজ স্লিপ দিয়ে দিবে, আর রিলিজ স্লিপে অন্যান্য কলেজ গুলোতে সিট অনেক কম থাকে।

যারা ১ম ও ২য় মেধা তালিকায় চান্স পাবেন না তারা পরবর্তীতে রিলিজ স্লিপের মাধ্যমে ৫ টি কলেজে ভর্তির আবেদন করতে পারবেন৷ আসন খালি থাকা সাপেক্ষে এসব কলেজে ভর্তির সুযোগ থাকবে৷

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্স ভর্তি পদ্ধতি 2022-2023

ভর্তি পরীক্ষা ছাড়াই এসএসসি ও এইচএসসি ফলাফলের ভিত্তিতে ছাত্রছাত্রী ভর্তি করানো হবে। প্রতিটি কলেজের জন্য আলাদাভাবে মেধা তালিকা তৈরী করে পরীক্ষার্থীদের পছন্দক্রম অনুযায়ী ১ম বর্ষ স্নাতক (সম্মান) শ্রেণির বিষয় বরাদ্দ দেয়া হবে।
একই প্রতিষ্ঠান/কলেজে একই বিষয়ে দুই বা ততোধিক আবেদনকারীর প্রাপ্ত ফলাফল একই হলে সেক্ষেওে এ সকল আবেদনকারীর পর্যায়ক্রমে

• ৪র্থ বিষয়সহ SSC ও HSC পরীক্ষায় প্রাপ্ত জিপিএ এর যথাক্রমে ৪০% ও ৬০% প্রয়োজন হলে SSC ও HSC পরীক্ষার মোট প্রাপ্ত নম্বরের যথাক্রমে ৪০% ও ৬০%

• এর পরেও যদি দুই বা ততোধিক আবেদনকারীর প্রাপ্ত ফলাফল একই হয়, তা হলে যার বয়স কম হবে তাকে অগ্রাধিকার দেয়া হবে।

২০২২-২৩ শিক্ষাবর্ষে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির জন্য প্রার্থীর এসএসসি সাল ২০১৯ ও ২০২০ এবং এইচএসসি সাল ২০২১ ও ২০২২ হতে হবে। How many GPA points will it take to get admission in National University Of Bangladesh Affiliated government college

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্স ভর্তির বিজ্ঞপ্তি 2023 দেখুন এই লিংকে

শিক্ষার সব খবর সবার আগে জানতে EducationsinBD.com এর ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন YouTube Channel জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল নোটিশ দেখুন এখানে একসাথে National University Notice Board আমাদের ফেসবুক গ্রুপে জয়েন করুন Facebook Group