পরীক্ষা খবরপ্রশ্ন সমাধানশিক্ষা নিউজ

এইচএসসি বাংলা ১ম পত্র পরীক্ষা সাজেশন 2024 Hsc Bangla 1st Paper Suggestion

২০২৪ সালের এইচএসসি পরীক্ষা ইতোমধ্যে শুরু হয়ে গিয়েছে। ১ এপ্রিল 2024 আজকে ছিল বাংলা প্রথম পত্র পরীক্ষা। এডুকেশন্স ইন বিডির পাঠকদের জন্য উক্ত পরীক্ষার এমসিকিউ প্রশ্নের সমাধান নীচে তুলে ধরা হলো। এছাড়াও সকল পরীক্ষার প্রশ্নের সমাধান পেতে আমাদের ওয়েবসাইট এ চোখ রাখুন। এইচএসসি বাংলা ১ম পত্র পরীক্ষা সাজেশন 2024 HSC Bangla 1st Paper Exam Suggestion 2024.

এইচএসসি বাংলা ১ম পত্র এমসিকিউ প্রশ্নের সমাধান ঢাকা বোর্ড 

HSC Bangla 1st Paper Exam 2024 MCQ Question Solution For Dhaka Board

এইচএসসি বাংলা ১ম পত্র পরীক্ষার প্রশ্নের সমাধান দেখুন এখানে

 

 

এইচএসসি ১ম পত্র বহুনির্বাচনি MCQ সাজেশন ২০২৪

Hsc Bangla 1st Paper MCQ Suggestion Pdf download Link 2024

সব কবিতা গুলো একসাথে (MCQ)

কবিতা – সাম্যবাদী

১.সাম্যবাদী কবিতার চরণ সংখ্যা কত-৩২
২. কবি কীসের গান গায় – সাম্যের
৩. কবি পুঁথি ও কেতাব বহন করতে বলেন – পেটে-পিঠে-কাঁধে-মগজে।
৪. সাম্যবাদী কবিতায় কবি কোথায় দর-কষাকষি হওয়ার কথা বলেন – দোকানে।
৫. সাম্যবাদী কবিতানুসারে তাজা ফুল কোথায় ফুটে- পথে।
৬. সকল শাস্ত্র খুঁজে পাওয়া যায় কোথায় – নিজ প্রাণে।
৭. সকল দেবতার বিশ্ব দেউল কোনটি – মানুষের হৃদয়।
৮. অমৃত -হিয়ার নিভৃত অন্তরালে কে হাসছেন – দেবতা- ঠাকুর।
৯. আপন হৃদয়ে সত্যের পরিচয় পেল কারা – ঈসা- মুসা।
১০. বাঁশির কিশোর কে – কৃষ্ণ।
১১. হৃদয়ের রণ-ভূমে বাঁশির কিশোর কী গাইলেন – মহা – গীতা।
১২. মেষের রাখাল নবিরা কার মিতা – খোদার।
১৩. হৃদয়ের ধ্যান গুহামাঝে বসেছেন – শাক্যমুনি।
১৪. মানবের মহাবেদনার ডাক শুনে রাজ্য ত্যাগ করল – শাক্যমুনি।
১৫. আলাল-দুলাল আহ্বান শুনতেন কোথায় – কন্দরে।
১৬.হৃদয়ের কন্দরে বসে আলাল-দুলাল কীসের গান গাইলেন-কোরানের সাম্য-গান।
১৭. মানুষের হৃদয়েরর চেয়ে বড় কী নেই- মন্দির -কাবা।

কবিতা – তাহারেই পড়ে মনে
.
১. তাহারেই পড়ে মনে সংলাপ নির্ভর কবিতা
২. ১ টি ঝতুর নাম আছে – বসন্ত
৩. ২ টি বাংলা মাসের নাম আছে – মাঘ, ফাল্গুন।
৪. বসন্ত উল্লেখ আছে – ৪ বার
৫. ফাল্গুন উল্লেখ আছে – ৩ বার
৬. লাইন – ৩০ টি
৭. স্তবক – ৫ টি
৮. কোন দুয়ার খুলে গেছে – দক্ষিণ দুয়ার
৯. কিসের ফুল ফুটেছে – বাতাবি নেবুর
১০. কিসের মুকুল ফুটেছে কি? – আমের
১১. সমীর কোন দিকের – দখিনা
১২. সমীর অর্থ – বাতাস
১৩.পাথার অর্থ – সমুদ্র
১৪.কুহেলি অর্থ – কুয়াশা
১৫. উত্তরী অর্থ – চাদর

১৬. অলখ অর্থ – অলক্ষ
১৭.মাধবী কুড়িঁ কি? – বসন্তী লতা বা তার ফুল
১৮. অর্ঘ্য অর্থ – পূঁজার উপকরণ
১৯. ১৯৩৫ খ্রিস্টাব্দে প্রকাশিত হয়
২০. অক্ষরবৃত্ত ছন্দে রচিত

এইচএসসি বাংলা ১ম পত্র পরীক্ষা সাজেশন 2024 Hsc Bangla 1st Paper Suggestion

এইচএসসি বাংলা ১ম পত্র পরীক্ষা সাজেশন 2022
এইচএসসি বাংলা ১ম পত্র পরীক্ষা সাজেশন 2023
HSC Bangla 1st Paper Exam Suggestion 2022
HSC Bangla 1st Paper Exam Suggestion 2023
HSC Bangla 1st Paper Exam Suggestion 2022
HSC Bangla 1st Paper Exam Suggestion 2022
HSC Bangla 1st Paper Exam Suggestion 2022
HSC Bangla 1st Paper Exam Suggestion 2023

কবিতা – লোক লোকান্তর

১. চরণ সংখ্যা – ১৪ টি
২. রং- সাদা, সবুজ, লাল
৩. গাছ – চন্দন, পান
৪. অঙ্গ – ঠোঁট, চোখ, পা, নখ
৫. অক্ষরবৃত্ত ছন্দে রচিত
৬. লোক-লোকান্তর কোন ধরনের কবিতা- আত্ম পরিচয়মূলক
৭. কবি তার চেতনাকে কার সাথে তুলনা করেন- একটি সত্যিকার সাদা পাখির সাথে
৮. কবির চেতনারুপ পাখিটি কোথায় বসে আছে- সবুজ অরণ্যে, চন্দনের ডালে
৯. বনচারী বাতাসের তালে দোল খায় – বন্য পানলতা
১০. পাখিটির ঠোঁট কীসে মাখামাখি হয়ে আছে – সুগন্ধ পরাগে
১১. পাখিটির দুটি চোখের কোটরে কীসের রং আছে- কাটা সুপারির রং
১২. পাখিটির পায়ের রং- সবুজ
১৩. পাখিটির নখের রং- তীব্র লাল
১৪. কবির তন্ত্রে- মন্ত্রে কী ভরে আছে – চন্দনের ডাল
১৫. কবি কোথায় চোখ রাখতে পরছেন না- বন্য ঝোপের ওপর
১৬. কবির মতে চেতনার মনি উজ্জ্বল হলে কি কেটে যাবে বা ছিঁড়ে যাবে- সমস্ত বাঁধুনি
১৭. লোকালয়ে কী তুচ্ছ হয়ে যাবে- সমাজ, সংসার, ধর্ম
১৮. লোক- লোকান্তর কবিতায় কবি স্তব্ধ হয়ে কী শুনেন – আহত কবির গান
১৯. কবির মতে কোনটির বিজয় আসন্ন- পরকাল
২০. লোকান্তর শব্দের অর্থ- পরকাল

কবিতা- রক্তে আমার অনাদি অস্থি

১. চরণ সংখ্যা – ২৪
২. নদীর নাম ৬ টি
৩. সাগর- বঙ্গোপসাগর
৪. কবিতাটি উৎসর্গ করা হয়েছে – কবীর চৌধরীকে
৫. কবি কার যৌবন চান- পদ্মার
৬. কবি কার প্রেম চান – যমুনার
৭. সুরমা নদীর পলিকে কবি কী বলেন – গলিত হেম
৮. হেম অর্থ- সুবর্ণ, সোনা
৯. “কাজল বুক “কোন নদীর – সুরমা নদীর
১০. কবিতায় উল্লেখিত, “গণমানবের তুলি ” কে – কবি নিজে
১১. “তোমার বুকে আমি নিরবধি “এ বাক্যে তোমাদের বলতে বুঝানো হয়েছে – নদীকে
১২.কবির মতে চারদিকে কী খেলা করে – বিচিত্র জীবনের রং
১৩.কোনটি বাঁকে বাঁকে ঘুরে – মুগ্ধ মরণ
১৪.কবি দিলওয়ার তার প্রাণ স্বপ্নকে কোথায় রেখেছেন – বঙ্গোপসাগর
১৫. কবি তার ত্রোূধকে তুলনা করেন- ভয়াল ঘূর্ণির সাথে
১৬. নরদানবের মুখে কী বোঝাই – প্রাণের জাহাজ
১৭. অস্থি শব্দের অর্থ- হাড়.

কবিতা – আমি কিংবদন্তির কথা বলছি

১. চরণ সংখ্যা – ৬৮
২. কবিতা-১৮ বার
৩. যে কবিতা শুনতে জানে না- ৯ বার
৪.কবির পূর্বপুরুষ কি ছিলেন – ত্রীূতদাস
৫. কবির পূর্বপুরুষের করতলে কি ছিলো – পলিমাটির সৌরভ
৬.কবির পূর্বপুরুষ কীসের কথা বলতেন- অতিত্রূান্ত পাহার, অরণ্য এবং শ্বাপদ, পতিত জমির আবাদ এবং কবিতার কথা বলতেন
৭. এ কবিতায় উজ্জ্বল জানালা কীসের আগুনে আলোচিত – উনোনের আগুনে
৮. কবি কার মৃত্যুর কথা বলেছেন- গর্ভবতী বোনের
৯. ভালোবেসে কি আসে- যুদ্ধ
১০. ভালোবাসা দিলে কে মরে যায়- মা
১১. যে কবিতা শুনতে জানে না সে হৃৎপিন্ডে কাকে ধরে রাখতে পারে না – সূর্যকে
১২. যে কবিতা শুনতে জানে না সে কীসের অধিকার থেকে বোনচিতো হবে – দিগন্তের
১৩. শস্যের সম্ভার কাকে সমৃদ্ধ করবে – যে কর্ষণ করে
১৪. প্রবাহমান নদী কাকে পুরষ্কৃত করবে- যে মৎস লালন করে
১৫. জননীর আর্শীবাদ কাকে দীর্ঘায়ু করে- যে গাভীর পরিচর্যা করে
১৬. ইস্পাতের তরবারি কাকে সশস্ত্র করবে- লৌহখণ্ড প্রজ্বলনকারীকে
১৭. কবিতায় কার যুদ্ধের কথা বলা হয়েছে – ভাইয়ের
১৮.সশস্ত্র সুন্দরের অনিবার্য অভ্যুণ্থান কী – কবিতা

কবিতা- নূরলদীনের কথা মনে পড়ে যায়

১. চরণ সংখ্যা – ৪২
২. সাল – ১১৮৯
৩. “নূরলদীনের কথা মনে পড়ে যায় “- ৬ বার
৪. নিলক্ষা আকাশেরর রং – নীল
৫. “নূরলদীনের কথা মনে পড়ে যায় ” কবিতায় লোকালয়ের সংখ্যা – উনসত্তর হাজার
৬. পুর্ণিমার চাঁদ কীসের মতো জ্যোৎস্না ঢালছে – ধবল দুধের মতো
৭. নিলক্ষার নীলে কে তীব্র শিস দেয় – চাঁদ
৮. মানুষের বন্ধ দরজায় হঠাৎ কে হানা দেয় – অতীত
৯. উল্লিখিত কবিতায় দীর্ঘদেহ কার- নূরলদীনের
১০. দীর্ঘদেহ নিয়ে নূরলদীন কোথায় দেখা যায় – মরা আঙিনায়
১১. নূরলদীনের বাড়ি কোথায়? – রংপুর
১২. বাংলা কত সালে নূরলদীন ডাক দিয়েছিলো – ১১৮৯ সনে
১৩. শকুন নেমে আসে কোথায় – সোনার বাংলায়
১৪. শকুন হল- পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীরা
১৫.কবির মতে আমাদের এই দেশ ছেয়ে আছে – দালালের আলখাল্লায়
১৬. দালাল কারা- রাজাকাররা
১৭. নূরলদীনের কথা মনে পড়ে যায় কবিতায় কবির কি লুট হয়ে যায়- স্বপ্ন
১৮. কবির মতে জ্যোৎস্নার সাথে কি ঝরে পড়ে – স্মৃতির দুধ
১৯. সমস্ত নদীর অশ্রু অবশেষে কোথায় গিয়ে মেশে- ব্রক্ষপুত্রে

কবিতা-বিভীষণেরর প্রতি মেঘনাদ
.
১.অরিন্দম মেঘনাদের উপাধি।
২.রক্ষপুর বলতে বুঝানো হয়েছে লঙ্কাপুরকে।
৩.মেঘনাদের রাজ্যের নাম লঙ্কাপুর।
৪.মেঘনাদের বাবার নাম রাবণ।
৫.মেঘনাদের চাচার নাম বিভীষণ।
৬.রাবণের মায়ের নাম নিকষা।
৭.রামানুজ হলো লক্ষ্মণ (রামের ছোট ভাই)
৮. লক্ষ্মণের মায়ের নাম সুমিত্রা।
৯. সৌমিিএ বলতে বুঝানো হয়েছে লক্ষ্মণকে
১০. শেষ লাইন “গতি যার নীচ সহ,নীচ সে দুর্মতি “।
১১. কাব্যাংশে “চণ্ডাল “বলা হয়েছে রামকে।
১২. মেঘনাদ বিভীষণকে বলেছে দ্বার ছাড়ার কথা।
১৩. মেঘনাদ লক্ষ্মণকে পাঠাবে -শমন ভবনে।
১৪.”লঙ্কার কলঙ্ক আজি ভঞ্জিব আহবর ” উক্তিটি- মেঘনাদের।
১৫.”রামানুজ “শব্দের সন্ধি বিচ্ছেদ – রাম+ অনুজ।
১৬. “বৃথা এ সাধনা ধীমান “- বিভীষণ, মেঘনাদকে বলল।
১৭. রাঘবদাস হল – বিভীষণ।
১৮. বিভীষণ কাজ করবে না – রাঘবের বিপক্ষে।
১৯. মাটিতে পড়ে ধূলায় গড়াগড়ি খায় না- শশী( চাঁদ)
২০. ‘নন্দন কাননে ভ্রমে ‘কে – দুরাচার দৈত্য।
২১. দুরাচার দৈত্যের সাথে তুলনা করা হয়েছে – লক্ষ্মণকে।
২২. প্রফুল্ল কমলে বাস করে – কীট।
২৩.মহামন্ত্র বলে যথা নম্রশিরঃ হয় কার – ফণী।
২৪. রাবণ অনুজ হল – বিভীষণ।
২৫. রাবণ আত্মজ হল – মেঘনাদ।
২৬. অমিত্রাক্ষর ছন্দে রচিত

কবিতা – ঐকতান
.
১.ঐকতান কবিতার চরণ সংখ্যা -৫৪
২. ঐকতান কবিতার স্তবক সংখ্যা -৪
৩. কবির মন জুড়ে আছে- বিশাল বিশ্বের ক্ষুদ্র এক কোণে
৪. কবি অক্ষয় উৎসাহে পড়েন -ভ্রমণবৃত্তান্ত গ্রন্থ
৫. কবি কুড়িয়ে আনেন – চিএময়ী বর্ণনার বাণী
৬.কবি তার জ্ঞানের দীনতা পূরণ করে নেন – ভিক্ষালব্ধ ধনে
৭. “ঐকতান “কবিতায় কবি নিজেকে উল্লেখ করেছেন – পৃথিবীর কবি হিসেবে।
৮.বিভিন্ন কবিরা নানাদিক থেকে গান ঢালে – প্রকৃতির ঐকতানস্রোতে
৯. শ্রমজীবী মানুষের বিচিত্র কর্মভারে ভর দিয়ে চলছে- সমস্ত সংসার
১০. কবি সমাজের উচ্চ আসনে বসেছেন – সংকীর্ণ বাতায়নে
১১. কবি ওপাড়ার প্রাঙ্গণের ধারে গিয়েছেন – মাঝে মাঝে
১২. গানের পসরা ব্যর্থ হয় – কৃিএম পণ্যে
১৩. কবির কবিতা বিচিত্র পথে অগ্রসর হলেও হয়নি- সর্বএগামী
১৪. “ঐকতান “কবিতার কবি কোন কবির বাণী শুনতে পান- যে কবি আছেন মাটির কাছাকাছি
১৫. কবি আহ্বান করেন- অখ্যাত জনের নির্বাক মনের কবিকে
১৬. কবি এদেশকে বলেন প্রাণহীন
১৭. কবি এদেশের চার ধারকে বলেন – গানহীন
১৮. একতারা যাদের আছে তারাও যেন সম্মান পায়- সাহিত্যের ঐকতান সংগীত সভায়
.
কবিতা – ফেব্রুয়ারি ১৯৬৯
.
১. চরণ সংখ্যা – ২৮
২. ফেব্রুয়ারি ১৯৬৯ কোন ধরনের কবিতা – চেতনা, দেশপ্রেম, গণজাগরণেরর কবিতা
৩. কবিতাটির প্রেক্ষাপট – ১৯৬৯ এর গণঅভ্যুত্থান
৪. থরে থরে শহরে পথে নিবিড় হয়ে কোন ফুল ফুটেছে – কৃষ্ণচূড়া
৫. কবিতায় “কৃষ্ণচূড়া ” ফুলকে কিসের সাথে তুলনা করা হয়েছে – শহীদের ঝলকিত রক্তের বুদ্বুদ এর সাথে
৬. “আমাদের চেতনারই রং ” বলতে বুঝানো হয়েছে – একুশের কৃষ্ণচূড়াকে
৭. “একুশের কৃষ্ণচূড়া ” বলতে বুঝানো হয়েছে – একুশে ফেব্রুয়ারির কথা
৮. চেতনার রং এর বিপরীতে আছে – অন্য রং
৯. ঘাতকের আস্তানা কেমন- অশুভ
১০. কবিতানুসারে, কবি এবং কবির মতো বহু লোক এখন কোথায় – ঘাতকের আস্তানায়
১১.চতুর্দিকে কী তছনছ হচ্ছে – মানবিক বাগান ও কমলবন
১২.শূন্যে ফ্ল্যাগ তোলে কে – সালাম
১৩. কে ঘাতকের থাবার সম্মুখে বুক পাতে- বরকত
১৪.কার চোখে আজ আলোচিত ঢাকা – সালামের
১৫. কার মুখে আজ তরুণ শ্যামল পূর্ব বাংলা – সালামের
১৬. কে অবিনাশী বর্ণমালা গাঢ় উচ্চারণে বলে – বরকত
১৭. এ কবিতায় বর্ণমালাকে তুলনা করা হয়েছে – রক্ষত্রের সাথে
.
কবিতা – আঠারো বছর বয়সে
.
১.ছাড়পত্র কাব্যগ্রন্থ থেকে সংকলিত
২. মাত্রাবৃত্ত ছন্দে রচিত
৩. লাইন – ৩২টি
৪. স্তবক – ৮ টি
৫. আঠারো – ৯ বার
৬. আঠারো বছর বয়সে আছে- ৭ বার
৭.লেখক – সুকান্ত ভট্রাচার্য
৮. পদাঘাতে ভাঙতে চায়- পাথর বাধা
৯. আঠারো বছর বয়স জানে না – কাঁদতে
১০. আঠারো বছর বয়স জানে – রক্তদিতে
১১. মানবজীবনেরর উওরণকালীন পর্যায় – আঠারো বছর বয়স
১২. আঠারো বছর বয়স চলে- স্টিমারের মত
১৩. আঠারো বছর বয়সে কানে আসে- মন্ত্রণা
১৪. আঠারো বছর বয়স কাঁপে – বেদনাময় থরোথরো
১৫. আঠারো বছর বয়স বিপদের মুখে – অগ্রণী
১৬. আঠারো বছর বয়স- ভীরু, কাপুরুষ নয়
১৭.পথে প্রান্তরে ছোটায় বহু – তুফান
১৮. আঠারো বছর বয়সে দুর্যোগে – হাল ঠিকমতো রাখা ভার
১৯. আঠারো বছর বয়সেই অহরহ – বিরাট দুঃসাহসেরা দেয় উকি

২০. এ দেশের বুকে আসুক নেমে- আঠারো বছর বয়স

কবিতা – সেই অস্ত্র
.
অক্ষরবৃত্ত ছন্দে রচিত
১.অস্ত্র শব্দটি আছে -১৫ বার
২.রং উল্লেখ আছে -১ টা (সবুজ)
৩. স্থান -ট্রয়নগরী
৪.”সেই অস্ত্র” বলতে বুঝানো হয়েছে – ভালোবাসা
৫. ভালোবাসা কীসের প্রতিশ্রুতি – সভ্যতার
৬. সেই অস্ত্র উত্তোলিত হলে অরণ্য হবে – আরও সবুজ
৭. সেই অস্ত্র উত্তোলিত হলে কোথায় আগুন জ্বলবে না- ফসলের মাঠে
৮. সেই অস্ত্র উত্তোলিত হলে কী খাঁ খাঁ করবে না- গৃহস্থালি
৯. ভালোবাসা ব্যাপ্ত হলে নক্ষএখচিত আকাশ থেকে কী ঝরবে না- আগুন
১০. মুহূর্তের অগ্নুৎপাত কোথায় ঘটে- মানব বসতি বুকে
১১.ভালোবাসা মানুষকে কী করে- সমাবিষ্ট
১২.ভালোবাসা কাকে নিশ্চিহ্ন করে – আধিপত্যের লোভকে
১৩. আমাদের চেতনা জুড়ে আর্তনাদ করবে না – পঙ্গু বিকৃতরা
১৪. ভালোবাসা উত্তোলিত হলে বার বার বিধ্বস্ত হবে না – ট্রয়নগরী
১৫. কবি কেমন অস্ত্রের প্রত্যাশী – অবিনাশী অস্ত্রেরর
১৬.কবি আমোঘ অস্ত্র ভালোবাসা, ব্যাপ্ত করতে বলেছেন কোথায় – পৃথিবীতে

.
কবিতা – এই পৃথিবীতে এক স্থান আছে।
.
১. কবিতাটির চরণ সংখ্যা -১৪ টি
২.”এক স্থান ” বলতে বোঝানো হয়েছে – বাংলাদেশ কে
৩. কবির কাছে তার দেশ কেমন- সবচেয়ে সুন্দর করুণ
৪. সবুজ ডাঙা ভরে আছে কীসে – মধুকূপী ঘাসে
৫. এ দেশে নাটার রঙের মতো অরুণ জাগছে কখন – ভোরের মেঘে
৬. কর্ণফুলী, ধলেশ্বরী, পদ্মা জলাঙ্গীরে জল দেয় কে – বরুণ
৭. জলাঙ্গী অর্থ – নদী
৮. পানের বনের মতো হাওয়ায় চঞ্চল কে – শঙ্খচিল
৯. কে ধানের গন্ধের মতো অস্ফুট, তরুণ – লক্ষ্মীপেঁচা
১০. কোনটি অন্ধকার ঘাসের উপর নুয়ে থাকে – লেবুর শাখা
১১. অন্ধকার সন্ধ্যার বাতাসে কে তার ঘরে উড়ে যায়- সুদর্শন
১২.হলুদ শাড়ি লেগে থাকে কার শরীরে- শঙ্খমালা
১৩. বারুণী কোথায় থাকে- গঙ্গাসাগরের বুকে
১৪. বর দিয়েছিল কে, কাকে- বিশালাক্ষী, শঙ্খমালাকে
১৫. এদেশকে বলা হয়েছে – নীল বাংলার দেশ
১৬. নীল বাংলার ধান ও ঘাসের ভিতর কে জন্মেছে – শঙ্খমালা
১৭. আধুনিক বাংলা সাহিত্যেরর অন্যতম শ্রেষ্ঠ কবি-জীবনানন্দ দাশ

 

০১| নেপোলিয়ন কোন দ্বীপে মৃত্যুবরণ করেন?
উত্তর–(ক) সেন্ট হেলেনা দীপে

০২| তিনি কোনো মতেই কারো কাছে ঠকিবেন না….তিনি বলতে “অপরিচিতা” গল্পে কাকে বুঝানো হয়েছে?
উত্তর–(ক) মামাকে

০৩| এক সময় কারা অসভ্য বর্বর ছিল?
উত্তর–(খ) ভারতবাসী

০৪| আহব্বান গল্পের বর্ণনাকারীর জন্য বুড়ির চাটাই বোনার কারণ কী?
উত্তর–(গ) বর্ণনাকারীর প্রতি বুড়ির সন্তানস্নেহ

০৫| মাসি-পিসি গল্পে মাসি ও পিসি একদেহ একমন হয়ে যাওয়ার কারণ কী?
উত্তর–(ঘ)
I)দুজনেই বিধবা, ii)আহ্লাদিকে দেখা-শোনা,iii)নিজেদের বেঁচে থাকার সংগ্রাম।

০৬| গোপন ও নীরব সাধনা কার মধ্যে অভিব্যক্ত?
উত্তর–(ক) বৃক্ষের মধ্যেই

০৭| আমার পথ”প্রবন্ধে নজরুলের মতে পরাবলম্বন আমাদের কী করে তুলছে?
উত্তর–(খ) I) নিষ্কৃয় iii) দাস

০৮| বায়ান্নর দিনগুলো রচনায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কাকে তাঁর সহকর্মীদের খবর দিতে বললেন?
উত্তর–(ক) চায়ের দোকানের মালিককে।
সবাইকে খবর দিতে বললে হতো মহিউদ্দীন।

০৯| “ল্যুভ” জাদুঘরটি কোথায় অবস্থিত?
উত্তর–(ক) ফ্রান্সে

১০| রেইনকোর্ট গল্পে “রেইনকোর্ট”কিসের প্রতীক?
উত্তর–(গ) ii) দেশ প্রেমের, iii) মুক্তিযুদ্ধের

১১| গোয়ালার সুন্দরী কন্যা রাবেয়ার স্বামীর অস্বচ্ছলতার কারণে অত্যন্ত অন্তুষ্ট—উদ্দীপকে রাবেয়ার সাথে সাদৃশ্য কোন চরিত্রে?
উত্তর–(খ) মাদাম লোইসেল

১২| “মহাজাগতিক কিউরেটর” গল্পটিতে লেখক চেয়েছেন—
উত্তর–(খ) মানুষের নির্বুদ্ধিতা তুলে ধরা

১৩| হায় তাত! উচিত কি তব এ কাজ? মেঘনাদের এই উক্তিটির মধ্য দিয়ে বিভীষণের কোন কাজটি পছন্দ হয়নি?
উত্তর–(ক) লক্ষ্মণকে যজ্ঞাগারে প্রবেশে সাহায্য করা।

১৪| ঐকতান কবিতার প্রথম চরণ কোনটি?
উত্তর–(ঘ) বিপুলা এ পৃথিবী কতটুকু জানি।

উদ্দীপকটি পড়ে ১৫ ও ১৬ নং প্রশ্নের উত্তর দাও—-
জগৎ জুড়িয়া এক জাতি আছে
সে জাতির নাম মানুষ জাতি
একই পৃথিবীর স্তনে লালিত
একই রবি-শশী মোদের সাথি।
১৫|উদ্দীপকের সাথে নিচের কোন চরণটির মিল আছে?
উত্তর–(খ) ii) মানুষের চেয়ে বড় কিছু নাই
নহে কিছু মহীয়ান।
–সমাধান রমজান স্যার।

১৬| উদ্দীপকে “সাম্যবাদী”কবিতায় কোন ভাবটি স্পষ্ট হয়ে উঠেছে?
উত্তর–(ক) মানুষে মানুষে সমতা

১৭| “এই পৃথিবীতে এক স্থান আছে” কবিতায় সন্ধ্যার বাতাসে কী উড়ে যায়?
উত্তর–(গ) সুদর্শন

১৮| হে কবি,নীরব কেন ফাগুন যে এসেছে ধরায়”এ চরণটিতে নীরব কেন বলতে কবির কেমন অবস্থা বুঝায়?
উত্তর–(গ) কাব্য বা গান রচনায় সক্রিয় না হওয়া।
শুধু “নীরব” হলে ক হতো।

১৯| বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ত্রিশ লক্ষ মানুষ শহিদ হয়েছেন এবং সম্ভ্রম হারিয়েছেন অসংখ্য মা-বোন।উদ্দীপকটির বক্তব্যে সাথে “সেই অস্ত্র” কবিতায় বর্ণিত কবিতায় কোনটি সাদৃশ্যপূর্ণ?
উত্তর–(ক) I)লক্ষ লক্ষ মানুষের পঙ্গু-বিকৃত হওয়া

২০| “আমাদের তরুণরাই দেশ ও জাতির চালিকাশক্তি হয়ে দাঁড়াক।” এ প্রত্যাশার প্রতিফলন “আঠারো বছর বয়স” কবিতার কোন চরণটিতে ঘটেছে?
উত্তর–(ঘ) এ দেশের বুকে আঠারো আসুক নেমে।

২১| “ফেব্রুয়ারি ৬৯” কবিতায় কৃষ্ণচূড়া ফুলকে কবির কাছে কেমন মনে হয়েছে?
উত্তর–(ঘ) শহিদের ঝলকিত রক্তের বুদ্বুদ

২২| তাঁর পীঠে রক্তজবার মতো ক্ষতো ছিল” এ চরণটিতে কার পীঠের ক্ষতটিকে নির্দেশ করে?
উত্তর–(ক) কবির পূর্ব-পুরুষদের

২৩| নূরলদীনের কথা মনে পড়ে যায়” কবিতায় বর্ণনা করা হয়েছে
উত্তর–(ক) একজন সংগ্রামী মানুষের জীবন

২৪| “আমাকে সেই অস্ত্র ফিরিয়ে দাও” এখানে কবি কোন অস্ত্রের কথা বলেছেন?
উত্তর–(ক) ভালোবাসা

২৫| ইস্ট-ইন্ডিয়া কোম্পানির কাশিমবাজার কুঠির প্রধান কে?
উত্তর–(খ) উইলিয়াম ওয়াটসন

২৬| জামিল সাহেব “রায়হানকে” রাস্তা থেকে কুড়িয়ে এনে লালন-পালন করেন। নিজের সন্তানের মতোই ভালোবাসতেন।কিন্তু জামিল সাহেব মারা যাওয়ার পর কুড়িয়ে পাওয়া ছেলে রায়হান সম্পত্তির লোভে জামিল সাহেবের ছেলেকে হত্যা করে?
উত্তর–(ক) মোহাম্মদি বেগ

২৭| “আমার নালিশ আজ আমার নিজের বিরুদ্ধে”সিরাজের এই উক্তির কারণ কী?
উত্তর–(গ) প্রজা সাধারণের নিরাপত্তার বিধান করতে না পারা।

২৮| মহব্বতনগরে আগমনের পূর্বে মজিদ কোথায় ছিল?
উত্তর–(খ) গারো পাহাড়ে
মজিদের বাড়ি নোয়াখালীতে

২৯| ভেতরে ক্রোধের আগুন জ্বলছে বাইরে যত ঠাণ্ডা থাকুক না কেন?
উত্তর–(গ) মজিদের

৩০| “জনগণে যারা জোঁকসম শোষে, মহাজন তারে কয়”….উদ্দীপকে “লালসালু”উপন্যাসে মহাজনদের বৈশিষ্ট্য কী?
উত্তর–(ক) I) শোষক,ii)স্বার্থপর

 

এইচএসসি বাংলা ১ম পত্র বহুনির্বাচনি সাজেশন ২০২৪ (সকল গদ্য)

মোট গদ্য – ১২ টি।

গদ্য -বিড়াল

১. বিড়াল একটি কাল্পনিক কথোপকথনমূলক গল্প
২. এ গল্পে ১ম অংশ নিখাদ হাস্যরসাত্মক, পরের অংশ গূঢ়ার্থে সন্নিহিত।
৩. বিড়ালের কথাগুলো-সোশিয়ালিস্টিক।
৪. বিড়াল প্রবন্ধে বঙ্কিমচন্দ্রের ভাষা ছিলো – শ্লেষাত্মক
৫. “বিড়াল ” গল্প অনুসারে বিড়ালদের রং – কালো
৬. কমলাকান্ত হুঁকা হাতে ঝিমাচ্ছিল – শয়নগৃহে, চারপায়ীর উপর বসে
৭. মিট মিট করে কেমন আলো জ্বলছিল – ক্ষুদ্র আলো
৮. “বিশেষ অপরিমিত লোভ ভাল নহে ” উক্তি টি- কমলাকান্তের।
৯. ‘দুধ মঙ্গলার, দুহিয়াছে প্রসন্ন ‘ উক্তিটি – কমলাকান্তের
১০. কমলাকান্তের জন্য রাখা নির্জল দুধ খেয়েছিল – একটি ক্ষুদ্র মার্জার
১১. বিড়াল মনে মনে হেসে কী বলল – “কেউ মরে বিল ছেচেঁ কেই খায় কই ”
১২. বিড়ালের উক্তি অনুযায়ী, বিল ছেঁচার সাথে সস্পর্কযুক্ত- কমলাকান্ত
কই খাওয়ার সাথে সম্পর্কযুক্ত – বিড়াল
১৩. বিড়াল দুধ খেলেও কমলাকান্ত মার্জারের উপর রাগ করতে পারে নি – অধিকারের কারণে
১৪. বিড়াল দুধ খেলে বিড়ালকে তাড়িয়ে মারতে যাওয়া হল – চিরাগত প্রথা
১৫. চিরাগত প্রথা ভঙ্গ করলে কমলাকান্ত –
মনুষ্যকূলে পরিচিত হবে – কুলাঙ্গার হিসেবে
রিড়ালদের কাছে পরিচিত হবে – কাপুরুষ হিসেবে।
১৬. অতত্রব, পুরুষের ন্যায় আচরণ করাই ভালো – উক্তিটি কমলাকান্তের
১৭. অনুসন্ধানে আবিষ্কৃত যষ্টিটি ছিল – ভগ্ন
১৮. কমলাকান্ত মার্জারের কথা বুঝতে পারল – দিব্যকর্ণ প্রাপ্তির ফলে
১৯. মারপিট কেন? – উক্তিটি বিড়ালের
২০. “পরোপকারই পরম ধর্ম ” উক্তিটি- বিড়ালের
২১. কে ধর্মসঞ্চয়ের মূলীভূত কারণ? – মার্জার
২২. মার্জারের মতে সমাজের ধনবৃদ্ধি মানে – ধনীদের ধন বৃদ্ধি
২৩. চোরের দণ্ড আছে কিন্তু দণ্ড নাই – নির্দয়তার
২৪. “না হইলে ত আমার কী ” উক্তিটি- বিড়ালের
২৫. কত দিবস উপবাস করলে কমলাকান্ত নসীরাম বাবুর ভাণ্ডার ঘরে ধরা পড়বে – তিন (৩) দিবস
২৬. কমলাকান্ত মার্জারকে কার বই পড়ার কথা বলেছিলো – নিউমান ও পার্কারের বই
২৭. বিড়াল শব্দটি আছে – ৮ বার
২৮. মার্জারী – ৪ বার
২৯. মার্জার আছে – ১১ বার
৩০. ” মেও ” আছে – ১৩ বার
৩১. যুদ্ধ – ওয়াটার লু
৩২. মাদকদ্রব্য – আফিং
৩৩. যষ্টি – লাঠি
৩৪. ভার্যা – স্ত্রী

গদ্য – অপরিচিতা

১. অনুপমের বয়স -২৭
২. “এ জীবনটা না দৈর্ঘ্যের হিসাবে বড়, না গুণের হিসাবে ” উক্তিটি- অনুপমের
৩. “তবু ইহার একটি বিশেষ মূল্য আছে ” উক্তিটি- অনুপমের
৪. পণ্ডিত মশাই অনুপমকে তুলনা করেছেন – শিমুল ফল ও মাকাল ফলের সাথে।
৫. অনুপমের বাবা কী করে প্রচুর টাকা রোজগার করত? – ওকালতি
৬. মামা অনুপমদের সংসার টাকে কিসের মতো নিজের অন্তরের মধ্যে শুষিয়া লইয়াছেন – ফাল্গুর বালির মত
৭. মামার অস্থিমজ্জায়য় কী জড়িত? – টাকার প্রতি আসক্তি
৮. কে কানপুরে কাজ করে – হরিশ
৯. হরিশ ছুটিতে কোথায় এসেছিল – কলকাতা
১০. কিছুদিন পূর্বেই অনুপম কী পাস করেছে- এম.এ. (MA)
১১. একে তো বরের হাট মহার্ঘ তাহার পরে? – ধনুক ভাঙ্গা পণ
১২. বাপ কেবলই সবুর করিতেছেন কিন্তু সবুর করিতেছে না – মেয়ের বয়স
১৩. হরিশের কেমন গুণ আছে? – সরস রচনার
১৪. কলিকাতার বাইরের পৃথিবীটাকে মামা কীসের অন্তর্গত জানেন? – আণ্ডামান দ্বীপ
১৫. বিনু দাদা কে? – অনুপমের পিসততো ভাই
১৬. মেয়ের পিতার নাম – শম্ভুনাথ সেন/বাবু
১৭.কার মুখ অনর্গল ছুটছিল- মামার
১৮. জীবনে একবার বিশেষ কাজে কোন পর্যন্ত গিয়েছিলেন – কোন্নগর
১৯. কার রুচি এবং দক্ষতার উপর কথক/অনুপম ষোল – আনা নির্ভর করতে পারে- বিনুদাদার
২০. “মন্দ নয় হে! খাঁটি সোনা বটে ” উক্তিটি- বিনুদাদার
২১. শম্ভুনাথ বাবু কখন অনুপমকে প্রথম দেখেন- বিবাহের তিন(৩) দিন আগে
২২. কার বয়ম ৪০ এর কিছু ওপারে বা এপারে- শম্ভুনাথ বাবুর
২৩. কার চুল কাঁচা, গোঁফে পাক ধরা আরম্ভ হয়েছে মাত্র – শম্ভুনাথ বাবুর
২৪. মামা কাকে সুদ্ধ এনেছিল – স্যাকরাকে
২৫. মামা কোথায় গহনাগুলোর ফর্দ টুকিয়া লইলেন – নোট বইয়ে
২৬. “ঠাট্রার সম্পর্কটাকে স্থায়ী করিবার ইচ্ছা আমার নাই” উক্তিটি- শম্ভুনাথ বাবুর
২৭. “কারণ, প্রমাণ হইয়া গেছে, আমি কেউই নই ” উক্তিটি – অনুপমের
২৮. “তাহা হইলে তামাশার যেটুকু বাকি আছে তাহা পুরা হইবে ” উক্তিটি- হিতৈষীদের
২৯. সমস্ত মন কার পানে ছুটিয়া গিয়াছিল – অপরিচিতার
৩০. কিন্তু কথা এমন করিয়া ফুরাইল না উক্তিটি – অনুপমের
৩১. কতক্ষণ পরে গাড়ি আসিল – দুই তিন মিনিট পর
৩২. স্টেশনে দেখা মেয়েটির বয়স কত? – ১৬ বা ১৭।
৩৩. মেয়েটির সাথে কয়টি ছোটো ছোটো মেয়ে ছিল – দুটি তিনটি
৩৪. খাবারওয়ালাকে ডেকে সে খুব খানিকটা কী কিনল? – চানা মুঠ

গদ্য – চাষার দুক্ষু

১. কখন ভারতবাসী অসভ্য বর্বর ছিলো- ১৫০ বছর পূর্বে।
২. কাকে সমাজের মেরুদণ্ড বলা হয়েছে – চাষাকে
৩. জুট মিলের কর্মচারীর মাসিক বেতন কত টাকা – ৫০০ থেকে ৭০০ টাকা।
৪. ‘নবাবি হালে থাকে, নবাবি চাল চালে ‘ কারা – জুট মিলের কর্মচারীরা।
৫. আমাদের বঙ্গভূমি কেমন- সুজলা, সুফলা, শস্য – শ্যামল।
৬. “ধান্য তার বসুন্ধরা যার ” উক্তিটি – রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের।
৭. কোন মহাযুদ্ধ সমস্ত পৃথিবীটাকে সর্বস্বান্ত করেছে – ইউরোপের যুদ্ধ।
৮. বাল্যকালে লেখিকা কী শুনিতেন? – টাকায় ৮ সের সরিষা।
৯. কার মাথায় বেশ ঘন ও লম্বা চুল ছিলো- কৃষক কন্যা জমিরনের।
১০. জমিরনের মাথায় কতটুকু তেল লাগত? – আধ পোয়াটাক।
১১. কত পয়সায় এক সের তৈল পাওয়া যেত? – দুই গণ্ডা পয়সায়।
১২. কোন মাছ পরম উপাদেয় ব্যঞ্জন বলে পরিগণিত হত? – শুঁটকি মাছ।
১৩. কীসের বিনিময়ে কৃষক পত্নী কন্যা বিত্রূয় করত? – দুই সের খেসারির।
১৪. আসাম ও রংপুর জেলার রেশমকে স্থানীয় ভাবে কি বলে- ত্রন্ডি
১৫. কি নামক আর একটা ভূত তাহাদের স্কন্ধে চাপিয়া আছে? – অনুকরণপ্রিয়তা
১৬. কারা পাল্কি নিয়ে ট্রামে যাতায়াত করলে সভ্যতার চুড়ান্ত হবে? – শিবিকাবাহকগণ (পালকিবাহকগণ)
১৭. কীসের সঙ্গে সঙ্গে দেশি শিল্পসমূহ ত্রূমশ বিলুপ্ত হইয়াছে? – সভ্যতা বিস্তারের
১৮. পল্লিগ্রামের দুর্গতির প্রতি কাদের দৃষ্টি পড়িয়াছে? – দেশবন্ধু নেতৃবৃন্দেরর

গদ্য – আহ্বান

১. লেখকের বাবার পুরাতন বন্ধুর নাম? – চক্কোত্তি মশায়
২.”বাড়িঘর করবে না? ” উক্তিটি – চক্কোত্তি মশায়
৩. বড় আম বাগানের মধ্য দিয়ে বাজারে যাচ্ছে – লেখক
৪. বুড়ির স্বামীরর নাম? – জমির করাতি
৫. বুড়ির স্বামী কাজ করতেন- করাতের
৬. বুড়ির আছে এক – নাত জামাই
৭. লেখক থাকে – এক ঙ্গাতি খুড়োর বাড়ি
৮. বুড়ি আপন মনে খুব খানিকটা বকে গেল- কাঠাঁলতলায় বসে
৯. পরদিন লেখক চলে গেল- কলকাতা
১০. লেখক তার নতুন তৈরি খড়ের ঘরখানাতে ত্রসে উঠল- জ্যৈষ্ঠ মাসে,গরমের ছুটিতে
১১. লেখকের মা-পিসি মারা গেছে- বাল্যকালে
১২. লেখক খায় – খুড়ো মশায়ের বাড়ি
১৩. লেখককে দুধ দেয়- ঘুঁটি গোয়ালিনী
১৪. বুড়ি লেখককে সম্বোধন করল – গোপাল বলে
১৫. সে কি! দুধ পেলে কোথায় ত্রতো সকালে – উক্তিটি লেখকের
১৬. বুড়িকে মা বলে ডাকে- হাজরা ব্যাটার বউ
১৭. “স্নেহের দান-ত্রমন করা ঠিক হয়নি “উক্তিটি – লেখকের
১৮. লেখক পুনরায় গ্রামে আসল- পাঁচ ছয় মাস পর, আশ্বিস মাসের শেষে
১৯. বুড়ি শুয়ে আছে- মাদুরের উপর
২০. বুড়ির মাথার বালিশ টা ছিলো-মলিন
২১. লেখক শরতের ছুটিতে গ্রামে ঢুকতেই দেখা হল- পরশু সর্দারের বউ/ দিগম্বরীর সাথে
২২. “ত্তমা আজই তুমি ত্রলে? ” উত্তিটি- দিগম্বরীর
২৩. বুড়ি কোন ঝতুতে মারা,যায় -শরত
২৪. লেখক যাদের পাশে গিয়ে বসল তারা হল- আবদুল,শুকুর মিয়াঁ, নসর
২৫. আবেদালির ছেলের নাম- গণি
২৬. কবর খুঁড়ছে- দুই জন জোয়ান ছেলে
২৭. “দ্যাত্ত বাবা,তুমি দ্যাত্ত “উক্তিটা- শুকুর মিয়াঁর

গদ্য- আমার পথ

১. কুর্নিশ – অভিবাদন
২. মেকি – মিথ্যা
৩. লেখকের পথ দেখাবে – লেখকেরর সত্য
৪. মানুষের মনএ আপনা আপনি বড় একটা জোর আসে কখন- নিজেকে চিনলে
৫. নিজেকে চিনলে মানুষ আপন সত্য ছাড়া আর কাইকে- কুর্নিশ করে না
৬. অনেক সময় খুব বেশি বিনয় দেখাতে গিয়ে অস্বীকার করা হয়- নিজের সত্যকে
৭. “ত্ত রকম বিনয়ের চেয়ে অহংকারেরর পৌরুষ অনেক-অনেক ভালো ” উক্তিটি – লেখকের
৮. স্পষ্ট কথা বলায় কী থাকে – অবিনয়
৯. কী আমাদের নিষ্ত্রিয় করে ফেলল- পরাবলম্বন
১০. সবচেয়ে বড় দাসত্ব হল – পরাবলম্বন
১১. আত্মনির্ভরতা আসে কখন?- আত্মাকে চিনলে।
১২. শিখাকে নিভাতে পারবে- মিথ্যার জল।
১৩. সবচেয়ে বড় ধর্ম- মানুষ ধর্ম
১৪. অন্য ধর্মকে ঘৃণা করতে পারে না- যার নিজের ধর্মে বিশ্বাস আছে।
১৫. লেখক পথে বের হলেন- আগুনের ঝান্ডা ঝুলিয়ে।
১৬. সত্য প্রকাশে লেখক- নির্ভীক অসংকোচ।
১৭. কবির প্রাণ প্রাচুর্যের উংস বিন্দু – সত্যের উপলব্ধি।
১৮. ঐক্যের মূল শক্তি হলো- সম্প্রীতি।
১৯. লেখকে বাল্য নাম- দুখু মিয়া(ব্যাঙাচি)
২০. তার ছদ্মনাম- ধূমকেতু।

গদ্য – জীবন ও বৃক্ষ

১. স্বল্পপ্রাণ, স্থূলবুদ্ধি, জবরদস্তিপ্রিয় মানুষের দেবতা – অহংকার
২. জীবনের তাৎপর্য উপলব্ধি সহজ হয় – বৃক্ষের দিকে তাকালে
৩. রবীন্দ্রনাথেরর মনে মমনুষ্যত্বেরর বেদনা উপলব্ধি হয়- নদীর গতিতে
৪. তপোবন প্রেমিক কে- রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর
৫. গোপন ও নিরব সাধনা অভিব্যক্ত হয় – বৃক্ষে
৬. দোরের কাছে দাঁড়িয়ে থেকে অনবরত নতি, শান্তি ও সেবার বাণী প্রচার করে কে – বৃক্ষ
৭. “ত্রই তো সাধনার সার্থকতা ” উক্তিটি – মোতাহের হোসেন চৌধুরীর
৮. সাধনার ব্যাপারে কি বড় জিনিস – প্রাপ্তি
৯. রবীন্দ্রনাথ অন্তরের সৃষ্টিকর্ম উপলব্ধি করেছেন – বৃক্ষের পানে তাকিয়ে
১০. বৃক্ষ আমাদের স্বার্থকতার গান শোনায় – নীরব ভাষায়
১১. প্রকৃতির ধর্ম কীসের মত- মানুষের ধর্মের মত
১২. তরুলতা ও জীব জন্তুর বৃদ্ধির উপর কাদের হাত নেই – মানুষের
১৩. মানুষের বৃদ্ধির উপর হাত রয়েছে – প্রকৃতির
১৪. মানুষের বৃদ্ধি কেমন- দৈহিক ও আত্মিক
১৫. মানুষের শিক্ষার প্রধান বিষয়বস্তু – সাধনা
১৬. শিক্ষার প্রধান বিষয়বস্তু হতে পারে না – বস্তু জিঙ্গাসা তথা বিঙ্গান
১৭. জীবনবোধ ও মূল্যবোধে অন্তর পরিপূর্ণ হয় – সাহিত্য শিল্পকলার দ্বারা
১৮. বৃদ্ধির ইশারা ও প্রশান্তির ইঙ্গিত কোথায় – বৃক্ষে
১৯. বৃক্ষ জীবনের গুরুভার বহন করে – অতি শান্ত ও সহিষ্ণুতায়

গদ্য – মাসি পিসি

১. শেষবেলায় খালে থাকে – পুরো ভাটা
২. খালের ধারে লাগানো সালতিটি কোথায় ছিলো – কংক্রিটেরর পুলের উপর
৩. সালতি থেকে পাড়ে তোলা হচ্ছে – খড়
৪. মাঝখানে গুটিসুটি হয়ে বসে আছে- আহ্লাদি
৫. অল্প বয়সী বৌটির গায়ে ছিলো – নকশা পাড়ের সস্তা সাদা শাড়ি
৬. আঁট সাঁট থমথমে গড়ন,গোলগাল মুখ- আহ্লাদির
৭. মাসি-পিসি ফিরছে কৈলেশ উক্তিটি- বুড়ো লোকটির(রহমানের)
৮. “বেলা আর নেই কৈলেশ ” উক্তিটি – মাসি বলে বিরক্তির সঙ্গে
৯. “অনেকটা পথ যেতে হবে কৈলেশ ” উক্তিটি – পিসির
১০. “বেলা বেশি নেই কৈলেশ ” উক্তিটি – পিসির
১১. কৈলেশের সাথে দেখা হয়েছিল – জগুর
১২. জগু হল- আহ্লাদির স্বামী
১৩. উড়ে ত্রসে জুড়ে বসেছে – মাসি
১৪. পিসির অহংকার আর খোঁচাই সবচেয়ে অসহ্য লাগত- মাসির
১৫. আহ্লাদিকে বাঁচাতে হবে- শ্বশুরঘরের কবল থেকে
১৬. আহ্লাদিকে সামলে রাখতে হবে – গাঁয়ের বজ্জাতদের নজর থেকে
১৭. জগুর বৌ নেবার আগ্রহ- খুবই স্পষ্ট
১৮. “ডারসনি আহ্লাদি ” উক্তিটি – মাসির
১৯. “ডরাসনি,ডর কিসের “? উক্তিটি- পিসির
২০. “কাছারি বাড়ি যেতে হবে ত্রকবার ” উক্তিটি- কানাইয়ের
২১. গাঁয়ের গুণ্ডা হলো- সাধু বৈদ্য ওসমানেরা
২২. ফেটি-বাধা বাবরি চুল কার- বৈদ্যের
২৩. কাঁঠাল গাছের ছায়ায় কত জন ঘুপটি মেরে ছিলো- তিন – চারজন।

বায়ান্নর দিনগুলো

১. জেলের ভিতর অনশন ধর্মঘট করার জন্য প্রস্তুত হচ্ছিল – শেখ মুজিব ও মহিউদ্দিন
২. জেল কর্তৃপক্ষ বিশেষ করে সুপারিন্টেনডেন্ট ছিলো – আমীর হোসেন সাহেব।
৩. রাজবন্দিদের ডেপুটি জেলার ছিল- মোখলেসুর রহমান সাহেব।
৪. শেখ মুজিবুর রহমানকে জেলগেটে নিয়ে যাওয়া হলো- ১৫ ফেব্রুয়ারি সকালবেলা
৫. লেখকের মালপত্র, কাপড়চোপড় ও বিছানা নিয়ে হাজির হল- জমাদার সাহেব
৬. নারায়ণগঞ্জ থেকে জাহাজ ছাড়ে – ১১ টায়
৭. লেখকদেরর জন্য আনা হয়েছে – বন্ধ ঘোড়ার গাড়ি
৮. বন্ধ ঘোড়ার গাড়ির মধ্যে লেখকদের সাথে বসল – দুইজন
৯. ট্যাক্সি রিজার্ভ করে দাঁড়িয়ে ছিলো – একজন আর্মড পুলিশ
১০. শেখ মুজিবুর রহমানকে প্রথমে নেয়া হয় – নারায়ণগঞ্জ থানায়
১১. পরবর্তীতে নেয়া হয় – ফরিদপুর জেলে
১২. লেখকরা স্টেশনে আসল – রাত ১১ টায়
১৩. জাহাজ ছাড়ল – রাত ১ টায়
১৪. জাহাজ গোয়ালন্দ ঘাটে পৌছল – রাতে
১৫. তারা পেট পরিষ্কার করার জন্য – ঔষধ খেল
১৬. মুহিউদ্দিন ভুগছে – প্লুরিসিস রোগে
১৭. লেখকদের নাক দিয়ে জোর করে খাওয়াতে লাগল- ৪ দিন পর
১৮. লেখকের একটা ব্যারাম ছিলো – নাকে
১৯. লেখকের নাকে ঘা হয়ে গেছে – দু-তিন দিন পর
২০. বার বার অনশন করতে নিষেধ করছিলেন – সিভিল সার্জন সাহেব

গদ্য – বায়ান্নর দিনগুলো

১. শেখ মুজিবুর রহমান ছোট ছোট চিঠি লিখল – ৪ টা
২. শোভাযাত্রা করে জেলগেটে ত্রসেছিল – ২২ তারিখে
৩. অপরিণামদর্শিতার কাজ করল – মুসলিম লীগ সরকার
৪. দুনিয়ার কোথাও গুলি করে হত্যা করা হয় নাই – মাতৃভাষা আন্দোলনের জন্য
৫. মানুষের যখন পতন আসে তখন ভুল হতে থাকে – পদে পদে
৬. খানসাহেব ওসমান আলীর বাড়ি – নারায়ণগঞ্জ
৭. ত্রক ত্রাসের রাজত্ব সৃষ্টি করেছে – ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জে
৮. “তোমার অর্ডার এসেছে ” উক্তিটি – মহিউদ্দিনের
৯. ডাবের পানি আনিয়েছেন – ডাক্তার সাহেব
১০. মহিউদ্দিন লেখকের অনশন ভাঙ্গিয়ে দিলেন- দুই চামচ ডাবের পানি দিয়ে।
১১. ফরিদপুর জেল থেকে লেখক বাড়ি পৌঁছলেন – ৫ দিন পর
১২. লেখকদের বড় নৌকায় মিল্লা ছিল – ৩ জন
১৩. কথার বাঁধ ভেঙ্গে গেছে- রেণুর
১৪. আমরা আজ স্বাধীন হয়েছি – ২০০ বছর পর
১৫. প্লুরিসিস – বক্ষব্যাধি
১৬. প্রকোষ্ঠ – ঘর বা কুঠরি

গদ্য – জাদুঘরে কেন যাব

১. পৃথিবীর ১ম জাদুঘর স্থাপিত হয় কোথায়? – আলেক জান্দ্রিয়ায়
২. পৃথিবীর প্রথম জাদুঘর ছিলো – নিদর্শন, সংগ্রহ-শালা, গ্রন্থাগার, উদ্ভিদ উদ্যান, উন্মুক্ত চিড়িয়াখানা
৩. পৃথিবীর প্রথম জাদুঘর ছিল মুখ্যত – দর্শন চর্চার কেন্দ্র
৪. কোনটি ফরাসি বিপ্লবের পরে প্রজাতন্ত্র সৃষ্টি করে – ল্যুভ
৫. ফরাসি বিপ্লবের পরে কী উন্মোচিত হয় – ভের্সাই প্রাসাদের দ্বার
৬. রুশ বিপ্লবের পরে লেনিনগ্রাদের রাজপ্রাসাদে গড়ে ওঠে – হার্মিতিয়ে
৭. কোনটি ঐতিহাসিক প্রাসাদ – টাওয়ার অফ লন্ডন
৮. ব্রিটেনে জাদুঘরের সংখ্যা দ্বিগুণ হয়েছে – গত ত্রিশ বছরে
৯. ব্রিটেনের সবচেয়ে বড় জাদুঘর কোনটি – ব্রিটিশ মিউজিয়াম
১০. এখন জাদুঘর বলে বিবেচিত – ম্যস্যাধার ও নক্ষত্রশালাও
১১. কোনটি ত্রখন খুবই প্রচলিত – উন্মুক্ত জাদুঘর
১২. বাংলাদেশের জাতিতাত্ত্বিক জাদুঘর কোথায় – চট্রগ্রামে
১৩. রচনায় উল্লিখিত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কণিষ্ঠ শিক্ষক কে – লেখক।
১৪. কে জাদুঘর শব্দের জায়গায় সর্বত্র মিউজিয়াম পড়ছেন – শিক্ষামন্ত্রী
১৫. শিক্ষকপ্রতিম অর্থমন্ত্রী ড. এম. এন. হুদা লেখককে কখন ডাকলেন – চা খাওয়ার সময়।
১৬. মিউজিয়ামকে আপনারা জাদুঘর বলেন কেন? উক্তিটি – গর্ভনরের
১৭. “স্যার জাদুঘরই মিউজিয়ামের বাংলা প্রতিশব্দ ” উক্তিটি – লেখক হকচকিয়ে বলল
১৮. জাদুঘরকে আজবখানা বলা হয় – উর্দুতে
১৯. জাদুঘরকে অজায়ের-ঘর বলা হয় – হিন্দিতে
২০. কে দ্বিজাতিতত্ত্বে বিশ্বাসী ছিলেন – আব্দুল মোনায়েম খান
২১. লেখক ব্রিটিশ ভারতীয় মুদ্রার সযত্ন স্থান দেখেছে কোথায়? – কুয়েত
২২. টাওয়ার অফ লন্ডনে সকলে ভিড় করে কেন? – কোহিনুর দেখতে
২৩. একটা শক্তিশালী সামাজিক সংগঠন কোনটি – জাদুঘর
২৫. কী আমাদের আনন্দ দেয় – জাদুঘর

গদ্য – রেইনকোট

১. রেইনকোট গল্পের কথক কে? – নুরুল হুদা
২. রেইনকোট গল্পে উল্লিখিত জেনারেল স্টেটমেন্টটি হলো – “শনিতে সাত মঙ্গলে তিন, আর সব দিন দিন ”
৩. ফুটফাট বন্ধ কয়দিন – অন্তত ৩ দিন
৪. বাদলায় কোনটির জিরিয়ে নেওয়ার কথা বলা হয়েছে – বন্দুক বারুদ
৫. মিলিটারির ভয়ে গল্পের নুরুল হুদা কি মুখস্থ করেছে – সূরা
৬. রাস্তায় বেরুলে নুরুল হুদা ঠোঁটের ওপর কি রাখে – পাঁচ কালেমা
৭. মাঠ পেরিয়ে একটু বাঁ দিকে – প্রিন্সিপ্যালের বাড়ি
৮. প্রিন্সিপ্যালেরর কোয়ার্টারের সঙ্গে কোনটির অবস্থান – মিলিটারি ক্যাম্প
৯. কোনটিকে মিলিটারি ক্যাম্প করা হয়েছে – কলেজের জিমনেশিয়ামে
১০. রাস্তায় ঘড়ঘড় করছিলো – বেবি ট্যাকসি
১১. কে নাশতার আমন্ত্রণ ফিরিয়ে দিয়েছে – ইসহাক
১২. মিন্টু যেখানে গেছে তার খবর জানে কারা – নুরুল হুদা ও তার বউ
১৩. কে রোজ,টাইমলি কলেজে যায় – নুরুল হুদা
১৪. নুরুল হুদা রাস্তায় এসে দেখল কি নেই – রিক্সা
১৫. নুরুল হুদা কিসের পরোয়ানা করে না – রিক্সার
১৬. কোন বৃষ্টিতে বেশ শীত শীত ভাব – শেষ হেমন্তের বৃষ্টিতে
১৭. বাসস্ট্যান্ডে পৌঁছে নুরুল হুদাকে কোন দিকে তাকাতে হয় – উওরে
১৮. কীসের ল্যাজটা দেখা যাচ্ছে না – মিলিটারি লরির
১৯. কে ত্রকটু বাচাল টাইপের – দোকানদার ছেলেটা
২০. স্টেট বাসের রং কেমন ছিলো – লাল
২১. বাসে কত গুলো সিট খালি ছিলো – অর্ধকের বেশি
২২. নুরুল হুদার চাউনি কেমন ছিল – ভোঁতা কিন্তু গরম
২৩. নুরুল হুদা বাস থেকে নেমে নামল কোথায় – নিউ মার্কেট
২৪. আলমারি কিসের – লোহার
২৫. মোট আলমারি কতটি – ১০ টি
২৬. আলমারিগুলো আনা হয়েছে – ঠেলাগাড়ি দিয়ে
২৭. নুরুল হুদার ছেলের বয়স – ৫ বছর
২৮. নুরুল হুদার,মেয়ের বয়স – আড়াই (২.৫) বছর

গদ্য – মহাজাগতিক কিউরেটর

১. কোন গ্রহটি খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে দেখে মহাজাগতিক কিউরেটররা বেশ সন্তুষ্ট – তৃতীয় গ্রহ (পৃথিবী)
২. কাকে প্রাণহীন বলা যায় – ভাইরাস
৩. ভাইরাসের মাঝে কখন জীবনের লক্ষণ দেখা যায়- অন্য প্রাণির সংস্পর্শে ত্রলে
৪. কোন ধরনের প্রাণিদের বেঁচে থাকার পদ্ধতি ভিন্ন – পানিতে থাকা প্রাণিদের
৫. কোন ধরনের প্রাণিদের একটির ভিতরে আবার অত্যন্ত নিম্নশ্রেণীর বুদ্ধিরর বিকাশ হয়েছে – গরম রক্তের স্তন্যপায়ী প্রাণিদের
৬. কোথায় কোনো মৌলিক পার্থক্য নেই – ভিন্ন ভিন্ন প্রজাতির মাঝে
৭. সব প্রাণির মূল গঠনটি কী দিয়ে হয়েছে – DNA
৮. সব প্রাণির DNA – একই রকম
৯. সবচেয়ে সহজ ও সবচেয়ে কঠিন প্রাণিটির গঠন কেমন – একই রকম
১০. সব প্রাণি কী দিয়ে তৈরি – একই বেস পেয়ার দিয়ে
১১. DNA দিয়ে তৈরি আছে – প্রাণিটির বিকাশের নকশা
১২. আকারে ছোট, গঠন সহজ, মাঝে কোনো বৈচিত্র নেই – ভাইরাস কিংবা ব্যাকটেরিয়ার
১৩. আকারে বড় এবং সংরক্ষণ কঠিন – হাতি বা নীল তিমি
১৪. সাপ – সরীসৃপ
১৫. বাঘ – স্তন্যপায়ী
১৬. একসাথে থাকে ও দল বেঁধে ঘুরে বেড়ায় – কুকুর
১৭. নিজের স্বকীয়তা হারিয়েছে – কুকুর
১৮. স্বকীয়তা লোপ পাচ্ছে – গৃহপালিত প্রাণিদের
১৯. দীর্ঘ সময় খেতে হয় ও ঘাস লতা পাতা খেয়ে কাটায় – হনিণ
২০. সবচেয়ে বেশি আলোড়ন সৃষ্টি করেছে – মানুষ
২১. মানুষ ত্রকে অন্যের উপর কোন বোমা ফেলছে – নিউক্লিয়ার
২২. পৃথিবী ত্রক সময় নিয়ন্ত্রণ করবে কারা – পিঁপড়া

গদ্য – নেকলেস

১. গল্পের নায়কের নাম – মসিঁয়ে/মসিঁয়ে লোইসেল
২. গল্পের নায়িকার নাম – মাতিলদা লোইসেল / মাদাম লোইসেল
৩. মাদাম লোইসেলের বান্ধবীর নাম – মাদাম ফোরস্টিয়ার
৪. নিয়তির ভুলেই যেন মাদাম লোইসেলের জন্ম হয়েছে – কেরানির ঘরে
৫. মাদাম লোইসেলের বিয়ে হয় কার সাথে – শিক্ষা পরিষদ আপিসের এক কেরানির সাথে
৬. কীসের অক্ষমতার জন্য সে সাধারণভাবে থাকত – নিজেকে সজ্জিত করার
৭. তার শ্রেণির অন্যতম হিসাবে মাদাম লোইসেল কেমন ছিল – অসুখী
৮. কাদের কোনো জাতিবর্ণ নেই – সাধারণ পরিবারের মেয়েদের
৯. রহিত মাছের রং কি? – গোলাপি
১০. কী খেতে সিংহ মানবী প্রলয়লীলার কথা শুনবেন – মুরগির পাখনা
১১. সিংহ মানবী কে? – মাদাম লোইসেল
১২. মাদাম লোইসেলের প্রিয় – ফ্রক বা জরোয়া গহনা
১৩. মাদাম লোইসেলের ধনী বান্ধবীটি কে ছিলো – “কনভেন্ট ” ত্রর সহকারী
১৪. ত্রক সন্ধ্যায় মসিঁয়ে লোইসেল কি নিয়ে ঘরে ফিরল – ত্রকটি বড় খাম
১৫. “ত্রই যে তোমার জন্য এক জিনিস ত্রনেছি ” উক্তিটি – মসিঁয়ে লোইসেলের
১৬. পোশাকের জন্য কত ফ্রাঁ লাগবে – চারশত ফ্রাঁ
১৭. মসিঁয়ের বন্ধুরা গত রবিবারে “ভরতপাখি ” শিকারে কোথায় গিয়রছিলো – নানতিয়ারের সমভূমিতে
১৮. মসিঁয়ের বন্ধুদের সাথে যোগ দেওয়ার ইচ্ছা – আগামী গ্রীষ্মে
১৯. মসিঁয়ে চারশত ফ্রাঁ সঞ্চয় করে রেখেছিল – “বন্দুক ” কেনার জন্য
২০. লোইসেল দম্পতি বাড়ি ফিরল – ভোর ৪ টায়
২১. কারা খুব বেশি ফুর্তিতে মও ছিলো – অন্য তিন জন ভদ্রলোকের স্ত্রী।
২২. মসিঁয়ে বিশ্রাম কক্ষে আধঘুম বসেছিল – মধ্যরাত্রি পর্যন্ত
২৩. হতাশ হয়ে কাপঁতে কাপঁতে তারা হাঁটতে থাকল – সিন নদীর দিকে
২৪. প্যারীতে সন্ধ্যার পর লোকের চোখে পড়ে – নিশাচর দুই যাত্রীর গাড়ি
২৫. হীরার হারটির মূল্য – ৪০,০০০ ফ্রাঁ
২৬. হারটি কত ফ্রাঁ দিয়ে আনতে পারবে – ৩৬,০০০ ফ্রাঁ।
২৭. ফেব্রুয়ারি মাসের ভিতর হারটি ফেরত দিলে তারা কত ফ্রাঁ ফেরত দিবে – ৩৪,০০০ ফ্রাঁ
২৮. লোইসেলের কাছে ছিলো – ১৮,০০০ ফ্রাঁ
২৯. মাদাম লোইসেলের নখের রং – গোলাপি
৩০. ফোরস্টিয়ারের হারটির দাম ছিলো – ৫০০ ফ্রাঁ.

টাগঃ এস সি বাংলা ১ম পত্র সাজেশন বহুনির্বাচনি ২০২৪উত্তরমালা,এইচ এস সি বাংলা ১ম পত্র সাজেশন বহুনির্বাচনি ২০২৪,এইচ এস সি ২০২৪ বাংলা ১ম পত্র বহুনির্বাচনি সাজেশন উত্তরমালা-সকল গদ্য,এইচ এস সি ২০২৪,বাংলা ১ম পত্র বহুনির্বাচনি সাজেশন,এইচ এস সি বাংলা ১ম পত্র সাজেশন ২০২৪,এইচএসসি বাংলা ১ম পত্র সাজেশন ২০২৪।

শিক্ষার সব খবর সবার আগে জানতে EducationsinBD.com এর ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন YouTube Channel জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল নোটিশ দেখুন এখানে একসাথে National University Notice Board অনার্স /মার্স্টাস/ ডিগ্রি পরীক্ষার প্রিমিয়াম সাজেশন পেতে ফেসবুক পেজে মেসেজ দিন। https://www.facebook.com/PremiumSuggestion আমাদের ফেসবুক গ্রুপে জয়েন করুন Facebook Group

One thought on “এইচএসসি বাংলা ১ম পত্র পরীক্ষা সাজেশন 2024 Hsc Bangla 1st Paper Suggestion

Comments are closed.