৩৭তম বিসিএসে নন-ক্যাডার নিয়োগের ফলাফল ফেব্রুয়ারি মাসে

৩৭তম বিসিএসে নন-ক্যাডার নিয়োগের ফলাফল ২০১৯ । Bangladesh Public Service Commission ৩৭তম বিসিএসে নন-ক্যাডার নিয়োগের প্রক্রিয়া শুরু করেছে বাংলাদেশ কর্মকমিশন (পিএসসি)।

এ বিসিএসে নন-ক্যাডারে আড়াই হাজার প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির পদে সহস্রাধিক নিয়োগের জন্য সুপারিশ করা হবে। আগামী ফেব্রুয়ারি মাসের শেষে নন-ক্যাডারের ফল প্রকাশ করা বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশন বিসিএস ৩৭তম বিসিএসে নন-ক্যাডার নিয়োগের ফলাফল ২০১৯

37th BCS Non Cadre Recruitment Result 2019 পিএসসি থেকে জানা গেছে, প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির বাইরে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের শূন্য পদে নিয়োগে পিএসসির কাছে যে পরিমাণ চাহিদা এসেছে, সেখানে উত্তীর্ণ সবাইকে নন-ক্যাডার পদে নিয়োগ দেয়া যাবে। যদিও বিসিএসে উত্তীর্ণদের প্রাথমিকের প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগ নিতে অনীহা আছে। কেননা এ পদটি দ্বিতীয় শ্রেণির বলা হলেও এখনও শিক্ষকেরা বেতন পান ১১ ও ১২তম গ্রেডে।

BPSC পিএসসি সূত্র জানায়, পিএসসি নন-ক্যাডারে নিয়োগ দিতে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের কাছে শূন্য পদ চেয়ে চিঠি পাঠায়। এতে বেশ কিছু সাড়া পায় পিএসসি। প্রথম শ্রেণির পদে ৪০০ এর অধিক এবং দ্বিতীয় শ্রেণির পদে প্রায় ৩০০টি। আর প্রাথমিকের প্রধান শিক্ষক পদ রয়েছে কয়েক হাজার।

এ ব্যাপারে পিএসসি চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাদিক সোমবার বলেন, ‘৩৭তম বিসিএসে নন-ক্যাডারদের নিয়োগ দিতে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের কাছে আমরা শূন্য পদের চাহিদা চেয়ে চিঠি দিয়েছিলাম, তাতে ভালো সাড়া পাওয়া যাচ্ছে। আশা করি, ৩৬তম বিসিএসের নন-ক্যাডারদের মতোই এবারও সবাইকে নিয়োগ দিতে পারব।’

তিনি বলেন, ‘নন-ক্যাডারে প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণিসহ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক পদে ১ হাজারের বেশি প্রার্থীকে নিয়োগের সুপারিশ করা হবে। আগামী ফেব্রুয়ারি মাসের শেষের দিকে পিএসসি থেকে এ তালিকা প্রকাশ করা হবে।’

গত বছরের ১২ জুন ৩৭তম বিসিএসের চূড়ান্ত ফল প্রকাশ করে পিএসসি। ৩৭তম বিসিএসে এক হাজার ৩১৪ জনকে ক্যাডার হিসেবে নিয়োগের সুপারিশ করা হয়। এতে সাধারণ ক্যাডার হয়েছেন ৪৬৫ জন, সহকারী সার্জন হয়েছেন ২৭২ জন, ডেন্টাল সার্জন হয়েছেন ৫১ জন।

শিক্ষা ও কারিগরিতে ক্যাডার হয়েছেন ৫২৬ জন। এ ছাড়া তিন হাজার ৪৫৪ জনকে নন-ক্যাডারে অপেক্ষমাণ রাখা হয়।

জানা গেছে, সুপারিশ করা ক্যাডারের মধ্যে প্রশাসন ক্যাডারে ৩০০ জন, পুলিশ ক্যাডারে ১০০, পররাষ্ট্র ক্যাডারে ২০, তথ্য ক্যাডারে ১৪, কৃষি ক্যাডারে ৫০, মৎস্য ক্যাডারে ৭৯, প্রাণিসম্পদ ক্যাডারে ৪৭ এবং সাধারণ শিক্ষা ক্যাডারে ২১০ জন।

২০১৬ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর ৩৭তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এতে অংশ নেন ২ লাখ ৪৩ হাজার ৪৭৬ পরীক্ষার্থী। প্রাথমিক বাছাই পরীক্ষায় ৮ হাজার ৫২৩ জন উত্তীর্ণ হন। এরপর ২০১৭ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি ৩৭তম বিসিএসের লিখিত পরীক্ষা শুরু হয়। শেষ হয় একই বছরের ২৩ মে। লিখিত পরীক্ষায় ৮ হাজার ৩১ জন অংশ নিয়ে পাস করেন ৫ হাজার ৩৭৯ জন।