Mon. Mar 30th, 2020

Educations in Bd

Online Educations in Bd | Getting Education Through Online

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার্স প্রোগ্রামের রেগুলেশন প্রমোশনের নিয়মকানুন

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার্স প্রোগ্রামের রেগুলেশন

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার্স প্রোগ্রামের রেগুলেশন নিয়ে বিস্তর আলোচনা করা হবে। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় আইন, ১৯৯২-এর ৪৬ নং ধারা মোতাবেক প্রণীত মাস্টার্স প্রোগ্রামের রেগুলেশন NU Masters Programs Regulation গ্রেডিং ও ক্রেডিট পদ্ধতি অনুযায়ী (মাস্টার্স ২০১৩-১৪ শিক্ষাবর্ষ থেকে কার্যকর) জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত প্রতিটি বিষয়ে মাস্টার্স প্রোগ্রাম থাকবে।

আরো পড়ুন- প্রিলিমিনারী টু মাস্টার্স প্রোগ্রামের রেগুলেশন ও সিলেবাস 

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার্স প্রোগ্রামের মেয়াদ:

• মাস্টার্স প্রোগ্রামের মেয়াদ হবে এক (০১) বছর।

• মাস্টার্স প্রোগ্রামের মোট ৪টি গ্রুপ থাকবে: মাস্টার্স অব আর্টস (এমএ), মাস্টার্স অব সোস্যাল সায়েন্স (এমএসএস), মাস্টার্স অব বিজনেস এ্যাডমিনিস্ট্রেশন (এমবিএ) এবং মাস্টার্স অব সায়েন্স (এমএসসি)।

শিক্ষা সংক্রান্ত সকল তথ্য পেতে আমদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন YouTube Channel

• বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক মাস্টার্স প্রোগ্রামে ভর্তির বিজ্ঞপ্তি অনুসারে যে কোন ছাত্র-ছাত্রী এই বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত কলেজ থেকে যে বিষয়ে স্নাতক (সম্মান) অথবা প্রিলিমিনারী টু মাস্টার্স পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছে সে বিষয়েই মাস্টার্স প্রোগ্রামে ভর্তি হতে পারবে।

• মাস্টার্স প্রোগ্রামের শিক্ষাবর্ষ হবে জুলাই-জুন। সংশ্লিষ্ট বিষয়ের সিলেবাস অনুযায়ী প্রতি শিক্ষাবর্ষে ক্লাস শুরুর পর থেকে মোট ৩০ সপ্তাহ পাঠদান, ৪ সপ্তাহ পরীক্ষার প্রস্তুতি, ৬ সপ্তাহ চূড়ান্ত বার্ষিক পরীক্ষা কার্যক্রম চলবে। অবশিষ্ট সময়ের মধ্যে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার্স প্রোগ্রামের রেগুলেশন অনুযায়ী পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করা হবে।

National University মাস্টার্স প্রোগ্রামের অন্তর্ভুক্ত বিষয়সমূহ নিম্নরূপ:

Masters of Arts (MA)
• বাংলা।
• ইংরেজী
• আরবী
• পালি।
• সংস্কৃত
• ইতিহাস।
• দৰ্শন।
• ইসলামী শিক্ষা
• ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি
• লাইব্রেরী এন্ড ইনফরমেশন সায়েন্স

Masters of Social science (MSS)
• অর্থনীতি
• রাষ্ট্রবিজ্ঞান
• সমাজকর্ম
• সমাজবিজ্ঞান
• নৃবিজ্ঞান

Masters of Business Administration (MBA)
• হিসাববিজ্ঞান
• ব্যবস্থাপনা
• ফিন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং
• মার্কেটিং

Masters of Science (MSc)
• রসায়ন
• পদার্থ বিজ্ঞান
• গনিত।
• পরিসংখ্যান
• উদ্ভিদবিজ্ঞান
• প্রাণিবিজ্ঞান
• প্রাণ রসায়ন
• ভূগোল ও পরিবেশ বিজ্ঞান
• পরিবেশ বিজ্ঞান
• মনোবিজ্ঞান
• মৃত্তিকা বিজ্ঞান।
• গাহস্থ্য অর্থনীতি
১৩) কম্পিউটার সায়েন্স

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার্স ভর্তির যোগ্যতা: (মাস্টার্স নিয়মিত)

• জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে অধিভুক্ত কোন কলেজ হতে যে বিষয় নিয়ে স্নাতক (সম্মান)/ প্রিলিমিনারী টু মাষ্টার্স পরীক্ষায় যে সকল ছাত্র ছাত্রী কৃতকার্য হয়েছে কেবলমাত্র সে সকল ছাত্র/ছাত্রী এই বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত কলেজসমূহে মাস্টার্স প্রোগ্রামে ভর্তি হতে পারবে।

• মাস্টার্স প্রোগ্রামে ভর্তির বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক যখন যেভাবে যে বিধি ও নির্দেশ জারী করা হবে তখন তা সেভাবে ছাত্র-ছাত্রী মেনে নিতে বাধ্য হবে।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার্স ভর্তির যোগ্যতা(মাস্টার্স প্রাইভেট)

• বিশ্ববিদ্যালয়ের বিধি মোতাবেক সংশ্লিষ্ট বিষয়ে প্রিলিমিনারী টু মাস্টার্স (প্রাইভেট) পরীক্ষায় পাশকৃত শিক্ষার্থীরা মাস্টার্স পরীক্ষায় প্রাইভেট পরীক্ষার্থী হিসেবে অংশগ্রহণের সুযোগ পাবে। তবে ব্যবহারিক ও মাঠকর্ম আছে এমন বিষয়ে প্ৰাইভেট পরীক্ষার্থী হিসেবে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারবে না।

• প্রিলিমিনারী টু মাস্টার্স (প্রাইভেট) পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার পর যে কোন সময়-সীমার মধ্যে মাস্টার্স (প্রাইভেট) রেজিষ্ট্রেশন করতে পারবে।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার্স প্রোগ্রামের  রেজিষ্ট্রেশন:

• রেজিষ্ট্রেশনের মেয়াদ ৩ বৎসর পর্যন্ত বলবৎ থাকবে।
• বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়মানুযায়ী একজন শিক্ষার্থী কেবলমাত্র একটি বিষয়ে ভর্তি ও রেজিষ্ট্রেশন করতে পারবে।

আরো পড়ুন- জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার্স প্রোগ্রামে ভর্তি বিজ্ঞপ্তি

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার্স কোর্সের ক্রেডিট-ঘণ্টা

• শিক্ষাকার্যক্ৰমসমূহ পরিচালিত হবে ক্রেডিট ঘন্টার ভিত্তিতে।
• প্রতি সপ্তাহে পাঠদানের জন্য ব্যয়িত এক (১) ক্লাস-ঘন্টাকে এক (১) ক্রেডিট হিসেবে গণ্য করা হবে।
• জাতীয় পত্রসমূহের জন্য ৬০ মিনিটের একটি ক্লাসকে এক ক্লাস-ঘন্টা

মাস্টার্স তত্তীয় ও ব্যবহারিক শিক্ষাকার্যক্রমের জন্য নিম্নে বর্ণিত ক্লাস-ঘন্টা অনুসরণ করা হবে

তত্ত্বীয় শিক্ষাকার্যক্রম: ৪ ক্রেডিট = প্রতি সপ্তাহ ৪ ক্লাস-ঘন্টা (৩০ সপ্তাহ ১২০ ক্লাস-ঘন্টা), ২ ক্রেডিট = প্রতি সপ্তাহ ২ ক্লাস-ঘন্টা (৩০ সপ্তাহ ৬০ ক্লাস-ঘন্টা)

• ব্যবহারিক শিক্ষাকার্যক্রম: ২ ক্রেডিট = প্রতি সপ্তাহ ৩ ক্লাস-ঘন্টা

• মৌখিক পরীক্ষা: মৌখিক পরীক্ষা = ৪ ক্রেডিট, মৌখিক পরীক্ষা = ২ ক্রেডিট

প্রাইভেট শিক্ষার্থীদের সিলেবাসে উল্লেখিত ০২ ক্রেডিটের টার্মপেপার ও ০২ ক্রেডিটের মৌখিক পরীক্ষার পরীবর্তে ০৪ (চার) ক্রেডিটের মৌখিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হবে।

মাস্টার্স প্রোগ্রাম ভিত্তিক ক্রেডিট এর বিস্তারিত বিবরণ

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার্স প্রোগ্রামের রেগুলেশন

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার্স মৌখিক পরীক্ষা:

• তত্ত্বীয়, ব্যবহারিক ও মৌখিক সকল পরীক্ষকের তালিকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ডাটা বেইজ (TMIS) হতে নির্ধারণ করা হবে। মৌখিক/ব্যবহারিক পরীক্ষা জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোনীত প্রতিনিধি ছাড়া গ্রহণ করা যাবে না। এরূপ পরীক্ষা গ্রহণের
জন্য মনোনীত কোন শিক্ষক দায়িত্ব পালন না করলে বা করতে ব্যর্থ হলে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের পূর্বানুমতি গ্রহণপূর্বক নিকটবর্তী কোন কলেজ হতে একজন উপযুক্ত শিক্ষককে দিয়ে পরীক্ষা গ্রহণের ব্যবস্থা করা যাবে এবং সঙ্গে সঙ্গে বিষয়টি লিখিতভাবে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রককে অবহিত করতে হবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের পূর্বানুমতি ছাড়া অন্য কোন শিক্ষককে দিয়ে পরীক্ষা গ্রহণ করা যাবে না। প্রতিদিন অনধিক ৪০ (চল্লিশ) জন পরীক্ষার্থীর ব্যবহারিক/মৌখিক পরীক্ষা । গ্রহণ “করা যাবে।

• উপযুক্ত কারণবশত: একজন শিক্ষার্থী যদি মৌখিক পরীক্ষায় অংশ গ্রহণে ব্যর্থ হয় সংশ্লিষ্ট পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশের পূর্বে বিশেষ বিবেচনায় মৌখিক পরীক্ষায় অংশ গ্রহণের সুযোগ পাবে। সে ক্ষেত্রে পরীক্ষার্থীকে মৌখিক পরীক্ষা অনুষ্ঠানের যাবতীয় খরচ বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের নির্ধারিত হারে বহন করতে হবে।

• মৌখিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে ব্যর্থ হলে একজন শিক্ষার্থী শুধুমাত্র একবার পরবর্তী শিক্ষাবর্ষের পরীক্ষার্থীদের সাথে মৌখিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ পাবে।

• মৌখিক ব্যবহারিক পরীক্ষা শেষ হওয়ার সাথে সাথে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ মৌখিক ব্যবহারিক পরীক্ষার নম্বর কেন্দ্র হতে অন-লাইনে বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রেরণ করবেন এবং এর একটি কপি অধ্যক্ষের নিজ দায়িত্বে গোপনীয়ভাবে সংরক্ষণ করবেন।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার্স পরীক্ষার গ্রেডিং সিস্টেম

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার্স প্রোগ্রামের রেগুলেশন

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার্স পরীক্ষার গ্ৰেড উন্নীতকরণ:

• একজন শিক্ষার্থী গ্ৰেড উন্নীতকরণের জন্য শুধুমাত্র C এবং D গ্রেড প্রাপ্ত কোর্সে ঠিক পরবর্তী ব্যাচের পরীক্ষার সময় চলতি সিলেবাস অনুযায়ী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করার সুযোগ পাবে। তবে কোন পরীক্ষার্থী C বা D গ্রেড প্রাপ্ত একটি কোর্সে একবারের বেশী গ্ৰেড উন্নীতকরণের সুযোগ পাবে না। কোন শিক্ষার্থী যদি গ্ৰেড উন্নীত করতে ব্যর্থ হয় তাহলে ঐ কোর্সে তার পূর্বের গ্রেড বহাল থাকবে। গ্ৰেড উন্নতিকরণে ক্ষেত্রে ১ম অথবা ২য় বারের পরীক্ষার মধ্যে যে গ্ৰেড উচ্চতর হবে তা যোগ করা হবে এবং তার ভিত্তিতেই ফলাফল নির্ধারণ করা হবে। F গ্রেড প্রাপ্ত কোর্সে রেজিষ্ট্রেশন মেয়াদ সাপেক্ষে একাধিকবার পরীক্ষা দেয়া
যাবে। একজন শিক্ষার্থী CGPA উন্নয়নের জন্য রেজিস্ট্রেশনের মেয়াদ থাকা সাপেক্ষে শুধুমাত্র চূড়ান্ত ফল প্রকাশের পরবর্তী বছর সর্বোচ্চ দুইটি কোসের (Cবা D প্রাপ্ত ) পরক্ষীয় অংশ নিতে পারবে। এ সকল কোর্সে গ্রেড উন্নয়ন করা যাবে না।

• ইন-কোস, মৌখিক ও ব্যবহারিক পরীক্ষায় গ্ৰেড উন্নতিকরণ কোন সুযোগ থাকবে না।

আরো পড়ুন- জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল শিক্ষার্থীদের জন্য প্রমোশনের নিয়মাবলী

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার্স ডিগ্রি প্রাপ্তির যোগ্যতাসমূহ

মাস্টার্স ডিগ্রি পেতে হলে একজন শিক্ষার্থীকে নিম্নোক্ত শর্তসমূহ পূরণ করতে হবে

• CGPA এর ভিত্তিতে চূড়ান্ত ফলাফল প্রকাশ করা হবে।

• একজন শিক্ষার্থীকে সকল তীয়/ব্যবহারিক/টার্ম পেপার/মাঠকর্ম পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে অব্যশই নূ্যনতম GPA 2 পেতে হবে। অন্যথায় সে উক্ত প্রোগ্রামে অকৃতকার্য বলে গণ্য হবে।

• প্রতিটি মৌখিক পরীক্ষায় পৃথকভাবে গ্ৰেড পয়েন্ট ২ অর্জন করতে হবে। কোন বর্ষে মৌখিক পরীক্ষায় প্রয়োজনীয় GPA অর্জনে ব্যর্থ হলে রেজিস্ট্রেশনের মেয়াদ থাকা সাপেক্ষে পরবর্তী ব্যাচের সাথে মৌখিক পরীক্ষায় অংশ গ্রহণের সুযোগ পাবে।

• সকল কোর্সের (তীয়/ব্যবহারিক টার্ম পেপার/মৌখিক) পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ বাধ্যতামূলক । এবং নূন্যতম গ্রেড পয়েন্ট ২.০০ বা D গ্রেড পেয়ে পাশ করতে হবে। কাজিত গ্রেড পয়েন্ট (২.০০) না পেলে অর্থাৎ F গ্রেড পেলে সেই ছাত্র-ছাত্রীকে রেজিস্ট্রেশনের তিন বছর মেয়াদের মধ্যে আবার পরীক্ষা দিয়ে গ্রেড পয়েন্ট ২.০০ (D) অর্জন করতে হবে এবং ডিগ্রি প্রাপ্ত হবে। উল্লেখ্য যে, এক বা একাধিক কোর্সে F গ্রেড পেলে কোনক্রমেই তাকে ডিগ্রি দেয়া হবে না।

• বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্ধারিত ফি পরিশোধ সাপেক্ষে ফলাফলের ট্রান্সক্রিপ্ট ও সাময়িক সনদ প্রদান করা হবে। সর্বশেষ ট্রান্সক্ৰিপ্টে CGPA উল্লেখ্য থাকবে। ট্রান্সক্রিপ্টে কোন গাণিতিক নম্বর থাকবে না। ট্রান্সক্রিপ্টে সকল রেজিস্টার্ড কোর্স দেখানো থাকবে।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার্স পরীক্ষার সিজিপিএ নির্ণয় করার পদ্ধতি

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার্স প্রোগ্রামের রেগুলেশন

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার্স প্রোগ্রামের টার্ম পেপারঃ

• মাস্টার্স প্রোগ্রামে যে সকল বিষয়ে টার্ম পেপার (term paper) আছে সে সকলবিষয়ে টার্ম পেপার তৈরীর কাজ তদারকির নিমিত্তে প্রতিষ্ঠানের প্রতিটি বিভাগের সকল শিক্ষককে নিয়ে টার্ম পেপার paperসম্পর্কিত একটি কমিটি গঠিত হবে এবং সংশ্লিষ্ট (term ) বিভাগের বিভাগীয় প্রধান হবেন টার্ম পেপার সম্পর্কিত কমিটির সভাপতি। প্রতিটি ছাত্র-ছাত্রী দুই কপি টার্ম পেপার জমা দিবে। তার মধ্যে প্রথমটি থাকবে সুপারভাইজরের (supervisor) জন্যে, দ্বিতীয়টি থাকবে দ্বিতীয় পরীক্ষকের জন্যে। উল্লেখ্য যে, সুপারভাইজার প্রথম পরীক্ষক হবেন। ক্লাস শুরুর প্রথম মাসেই টার্ম পেপারের (term paper) শিরোনাম তালিকাবদ্ধ করতে হবে। পাঠ্যসূচীর প্রধান দিকসমূহ থেকে টার্ম পেপার এর শিরোনাম নির্ধারণ করতে হবে। মূল্যায়ন শেষে সংশ্লিষ্ট বিভাগ ফলাফল প্রকাশের ৬ মাস পর্যন্ত টার্মপেপার সংরক্ষণ করবে এবং বিশ্বদ্যিালয় চাইলে তা পাঠাতে হবে।

• প্রতিটি টার্ম পেপার বাংলা/ইংরেজিতে লিখতে হবে এবং প্রতিটি ছাত্র-ছাত্রী একজন সুপারভাইজরের তত্ত্ববধানে থেকে টার্ম পেপার।
প্রস্তুত করবে। কমিটি তার পছন্দমত টার্ম পেপারের বিষয় (topic) ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে ভাগ করে দিবে এবং কমিটিই শিক্ষকদের মধ্যে থেকে সিনিয়রিটি অনুসারে টার্ম পেপার এর সুপারভাইজর ও দ্বিতীয় পরীক্ষক নির্ধারণ করবে।

• টার্ম পেপারে একটি ফ্রন্ট (front cover page) ও ইন-সাইড কভার পেজ (inside cover page) থাকবে। কভার পেজে বিষষের শিরোনাম, প্রত্যেক ছাত্র-ছাত্রীর নাম, রোল নং , সুপারভাইজরের নাম, পদবী ও তারিখ থাকবে। এ ছাড়া টার্ম পেপারের ।
যথাস্থানে সুপারভাইজরের ঘোষণা-পত্র (declaration), এন্ট্রাক্ট (abstract), সূচিপত্র (Table of contents) এবং ২০-২৫ পাতার একটি পূর্ণ বিবরণ (body of the term paper), গ্ৰন্থপঞ্জী (bibliography) ও এপেডিক্স (appendices) থাকবে। A4 সাইজের কাগজে, টাইমস নিউ রোমান (Times New ১৪শিরোনাম (tilte), ১৩-ফন্টে সাব-শিরোনাম Roman) ছাচে, -ফন্টে (sub-title), ১২-ফন্টে মূল বডি (body of the term paper) ১.৫ লাইন দূরত্বে (1.5 space) লিখতে হবে।

• কমিটি টার্ম পেপার জমা দেওয়ার তারিখ ঠিক করবে। ৫ মিনিটের Presentation এর মাধ্যমে মূল্যায়ন করা হবে। কমিটির সভাপতি, সুপারভাইজার (১ম পরীক্ষক) এর নম্বর, দ্বিতীয় পরীক্ষকের নম্বর ও তাঁদের দুইজনের (সুপারভাইজর ও দ্বিতীয় পরীক্ষক) প্রদত্ত নম্বরের গড় নম্বর জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের বরাবর পাঠিয়ে দিবে। কমিটির সভাপতি ও কমিটির সদস্যদের সম্মিলিত মতামতের ভিত্তিতে টার্ম পেপার সম্পর্কিত ফি নির্ধারণ করা হবে। ছাত্র-ছাত্রীদের দেয়া ফি (fee)-এর টাকা প্রতিষ্ঠানের সংশ্লিষ্ট বিভাগে জমা থাকবে এবং পরবর্তীতে ফি হিসেবে দেয়া ছাত্ৰ-ছাত্রীদের এ অর্থ টার্ম পেপার মূল্যায়নের জন্যে ব্যয় করা হবে।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার্স থিসিস পেপার সম্পর্কিতঃ

• থিসিস গবেষণা: জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত সকল কলেজে মাস্টার্স প্রোগ্রামে নিয়মিত ছাত্র-ছাত্রীদের থিসিস নেয়ার সুযোগ রয়েছে। তবে উল্লেখ থাকে যে, উক্ত কলেজসমূহে থিসিস গবেষণা চালিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যে যথাযথ গবেষণাগার থাকতে হবে এবং থিসিস নেয়া ছাত্র-ছাত্রীদের সুপারভাইজার হিসাবে দায়িত্ব পালনের জন্য এমফিল পিএইচডি ডিগ্রিধারী যোগ্য শিক্ষক থাকতে হবে। প্রয়োজনবোধে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় বা সরকারি প্রতিষ্ঠিত গবেষণা প্রতিষ্ঠান থেকে
কো- সুপারভাইজার হিসেবে নিয়োগ দেয়া যাবে। এ বিষয়ে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের অনুমোদন নিতে হবে। স্নাতক পর্যায়ে CGPA 3.00 এর উপরে গ্রেডিং প্রাপ্ত ছাত্র/ছাত্রীরা থিসিস নিতে পারবে। একজন সুপারভাইজার সর্বোচ্চ ৫ (পাঁচ) জন ছাত্র/ছাত্রীকে থিসিস গাইড করতে পারবেন।

• থিসিস সম্পর্কিত কমিটি: প্রত্যেক ছাত্র-ছাত্রী তার থিসিসের কাজ শেষ করে সংশ্লিষ্ট কলেজের মাধ্যমে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে থিসিস জমা দিবে। পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক পরীক্ষা কমিটি সাথে আলাপ করে জমাকৃত থিসিস দুজন বহিঃ পরীক্ষক দ্বারা মূল্যায়ন করাবেন। পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক থিসিস এর ওপর মৌখিক পরীক্ষার জন্য একটি তিন সদস্যবিশিষ্ট কমিটি গঠন করবেন। কমিটিতে সুপারভাইজার একজন সদস্য হিসেবে কাজ করবেন এবং বাকী দুইজন সদস্য সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের বাহির থেকে নিয়োগ করা হবে। থিসিস এর মৌখিক পরীক্ষার জন্য গঠিত কমিটির বহিঃ সদস্য দু’জনের মধ্যে যিনি সিনিয়র তিনি হবেন এ কমিটির সভাপতি। উল্লেখ থাকে যে, মৌখিক পরীক্ষাটি প্রেজেন্টেশন প্রক্রিয়ার মধ্যদিয়ে সম্পন্ন হবে। মৌখিক পরীক্ষার সময় জমাকৃত থিসিসের মূলকপি অবশ্যই সাথে আনতে হবে। থিসিসের প্রাপ্ত নম্বর সন্তোষজনক হলেই মৌখিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

আমদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন YouTube Channel

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Single Column Posts

করোনাভাইরাস কারণে বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় এর ওয়েবসাইটে এক বিজ্ঞপ্তিতে এ সংক্রান্ত তথ্য প্রকাশ করা হয়। প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তিতে...

উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় এইচএসসি ভর্তি তথ্য ২০২০-২০২১ নোটিশ প্রকাশিত হয়েছে। উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন এইচএসসি প্রোগ্রামে ভর্তি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হয়েছে। বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাউবি) অধীন ওপেন স্কুল...

উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত স্টাডি সেন্টারের ২০২০ সালের এইচএসসি পরীক্ষা সময়সূচী প্রকাশ হয়েছে। উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে এইচএসসি পরীক্ষার রুটিন প্রকাশ করা হয়। উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২০ সালের...

উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে বিবিএ ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০২০। বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে ৪ বছর মেয়াদি বিবিএ BBA বাংলা মাধ্যম ভর্তি চলছে ২০২০ ব্যাচ। উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২০...

বাংলাদেশে উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের এমএ ও এমএসএস মাস্টার্স পরীক্ষার রুটিন ২০২০। উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রিলিমিনারী মাস্টার্স ও মাস্টার্স ফাইনাল পরীক্ষার সময়সূচি ২০২০। উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৯ সালের মাস্টার্স...