Fri. Apr 3rd, 2020

Educations in Bd

Online Educations in Bd | Getting Education Through Online

করোনার কারণে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি বাড়তে পারে ঈদুল ফিতর পর্যন্ত

শিক্ষা মন্ত্রণালয় বাংলাদেশ

করোনাভাইরাসের কারণে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি বাড়তে পারে ঈদুল ফিতর পর্যন্ত। ইতোমধ্যে করোনা ভাইরাসের কারণে আগামী ৯ এপ্রিল ২০২০ পর্যন্ত সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। কিন্তু এর মধ্যে করোনাভাইরাস পরিস্থিতির আরো অবনতি হওয়ায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছুটি বাড়ানোর ব্যাপারে কাজ করছে শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। একবারে দীর্ঘ ছুটি ঘোষণা না হলেও মূলত ঈদুল ফিতরের পর ছাড়া আর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলছে না।

নতুন করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি বাড়ানোর ঘোষণা আসতে পারে বলে নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে। তবে এ বিষয়ে এখনও চূড়ান্তভাবে সিদ্ধান্ত হয়নি। দীর্ঘ সময় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ছুটি থাকতে পারে বিধায় এরই মধ্যে টিভিতে অভিজ্ঞ শিক্ষকদের ক্লাস সম্প্রচারের উদ্যোগ নিয়েছে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর।

করোনার কারণে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি বাড়তে পারে ঈদুল ফিতর পর্যন্ত

আরো পড়ুন- করোনা ভাইরাসের কারণে দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ

শিক্ষা সংক্রান্ত সকল তথ্য পেতে আমদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন YouTube Channel

এদিকে করোনা পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়ায় সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি ৯ এপ্রিল থেকে বাড়িয়ে আগামী ঈদুল ফিতর পর্যন্ত করার দাবি তুলেছেন অভিভাবকরা। তারা মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সাথে যোগাযোগ করে তাদের দাবি জানিয়েছেন। তাদের দাবি করোনার জন্য সাধারণ ছুটির সঙ্গে গ্রীষ্মকালীন ছুটি সমন্বয় করে ছুটি বাড়ানো হোক।

২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছে সরকার। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ৯ এপ্রিল পর্যন্ত ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। করোনাভাইরাসের কারণে পরিস্থিতি আরো খারাপ দিকে গেলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি বাড়িয়ে ঈদুল ফিতর পর্যন্ত করা হতে পারে। শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে সম্মিলিতভাবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নতুন করে ছুটি বাড়ানোর সিদ্ধান্ত আসতে পারে।

চলমান করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে বিশ্বব্যাপী বর্তমান পরিস্থিতির ভয়াভয়তা বেড়ে যাচ্ছে। ঘরের বাইরে বের হওয়াটা আরও ঝুকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। এমন পরিস্থিতিতে শিক্ষার্থীদের ঝুঁকির মধ্যে না ফেলে তাদের নিরাপত্তায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান দীর্ঘ সময়ের জন্য বন্ধ রাখার চিন্তা-ভাবনা করা হচ্ছে। বর্তমান ছুটি শেষ হওয়ার আগেই আগামী রমজান ও ঈদের ছুটি পর্যন্ত বাড়ানো হতে পারে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের বর্ষপঞ্জি অনুসারে রমজান, ঈদুল ফিতরসহ বেশ কিছু ছুটি মিলিয়ে ২৫ এপ্রিল থেকে ৩০ মে পর্যন্ত ছুটি রয়েছে। এ ছাড়া এপ্রিল মাসে শবেবরাত, স্টার সানডে ও পহেলা বৈশাখের ছুটি রয়েছে। সাপ্তাহিক ছুটি ও সরকারি ছুটি বাদে ৪ থেকে ২৪ এপ্রিল পর্যন্ত মাত্র ১৪ দিন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা রয়েছে। তাই করোনাভাইরাস রোধে এই ১৪ দিনও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখতে চায় উভয় মন্ত্রণালয়। করোনাভাইরাস পরিস্থিতির উন্নয়ন হলেও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান আগামী ঈদুল ফিতরের আগে আর খুলছে না বলে জানা যায়।

আরো পড়ুন- কোচিং সেন্টার বন্ধ থাকবে, শিক্ষার্থীদের ঘরে থাকতে হবে

এদিকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের সংসদ টেলিভিশন চ্যানেলের মাধ্যমে ক্লাস সম্প্রচার শুরু করেছে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতর (মাউশি)। কিছু বেসরকারি স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় অনলাইনে লেখাপড়া আদান-প্রদান শুরু করেছে। অনেক স্কুল থেকে অভিভাবকদের ফোন দিয়ে অর্ধবার্ষিক পরীক্ষার সিলেবাস পর্যন্ত পড়ালেখা শেষ করাতে বলা হয়েছে। এমনকি স্কুল খুললেই পরীক্ষায় বসতে হবে বলেও জানিয়ে দেয়া হয়েছে।

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. ফসিউল্লাহ বলেন,  এই পরিস্থিতিতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি বাড়ানো ছাড়া এ মুহূর্তে আর কোনো বিকল্প দেখছি না। তবে সেটি কত দিন হবে তা আন্তঃমন্ত্রণালয়ের সঙ্গে বসে সিদ্ধান্ত হবে। তিনি বলেন, বন্ধের সময়টুকুতে শিক্ষার্থীদের একাডেমিক টাচে রাখতে এটুআইয়ের প্রযুক্তিগত সহায়তা এবং সংসদ টেলিভিশনের মাধ্যমে বাছাই করা শিক্ষকদের রেকর্ডিং করা ক্লাস প্রচার করা হবে। এছাড়াও করোনা নিয়ে সর্তকতামূলক বার্তা ১ কোটি ৪০ লাখ বাচ্চার মায়েদের কাছে এসএমএসের মাধ্যমে পৌঁছানো হবে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন এডুকেশন্স ইন বিডিকে বলেন, সামগ্রিক বিষয় বিবেচনা করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। সবার আগে শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা ও স্বাস্থ্যঝুঁকির বিষয়টি বিবেচনা করা হবে। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা হবে। প্রয়োজনে ঈদুল ফিতরের পর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা হতে পারে।’

শিক্ষা ও প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, সরকার ইতোমধ্যে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সরকারি ছুটি ঘোষণা করেছে। পরিস্থিতির উন্নতি না হলে এ ছুটি বাড়তে পারে। এছাড়া চাঁদ দেখা গেলে আগামী ২৩ এপ্রিল থেকে রমজান শুরু হবে। রমজানে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকে। দীর্ঘদিন বন্ধ থাকতে পারে এমন শঙ্কায় বিকল্প উপায়ে শিক্ষাদানের পদ্ধতি খোঁজা শুরু করেছে শিক্ষার সংশ্লিষ্ট দপ্তরগুলো। বন্ধের এ সময়টুকুতে গ্রীষ্মকালীন ছুটি যুক্ত করে দেওয়া হতে পারে।

আমদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন YouTube Channel

Single Column Posts

করোনাভাইরাস কারণে বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় এর ওয়েবসাইটে এক বিজ্ঞপ্তিতে এ সংক্রান্ত তথ্য প্রকাশ করা হয়। প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তিতে...

উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় এইচএসসি ভর্তি তথ্য ২০২০-২০২১ নোটিশ প্রকাশিত হয়েছে। উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন এইচএসসি প্রোগ্রামে ভর্তি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হয়েছে। বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাউবি) অধীন ওপেন স্কুল...

উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত স্টাডি সেন্টারের ২০২০ সালের এইচএসসি পরীক্ষা সময়সূচী প্রকাশ হয়েছে। উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে এইচএসসি পরীক্ষার রুটিন প্রকাশ করা হয়। উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২০ সালের...

উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে বিবিএ ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০২০। বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে ৪ বছর মেয়াদি বিবিএ BBA বাংলা মাধ্যম ভর্তি চলছে ২০২০ ব্যাচ। উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২০...

বাংলাদেশে উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের এমএ ও এমএসএস মাস্টার্স পরীক্ষার রুটিন ২০২০। উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রিলিমিনারী মাস্টার্স ও মাস্টার্স ফাইনাল পরীক্ষার সময়সূচি ২০২০। উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৯ সালের মাস্টার্স...